সমুদ্রে ভাসমান ১২ জেলেকে উদ্ধার করেছে নৌবাহিনী

প্রকাশিতঃ নভেম্বর ৮, ২০১৬ at ৮:০৭ অপরাহ্ণ

sagore-uddhar
গভীর নিম্নচাপের কবলে পড়ে কক্সবাজারের ১৬৭ জনসহ সারাদেশের নিখোঁজদের সন্ধানে গভীর সমুদ্রে অভিযান শুরু করেছে নৌবাহিনী। অভিযানে নৌবাহিনীর তিনটি জাহাজ অংশগ্রহন করেছে। অভিযান চালিয়ে আজ (মঙ্গলবার) দুপুরে কক্সবাজার জেলার ১১ জনসহ মোট ১২ জন জেলেকে উদ্ধার করেছে ওই বাহিনী।
আজ (মঙ্গলবার) দুপুরে নৌবাহিনী জাহাজ ‘স্বাধীনতা’ কক্সবাজার উপকূল হতে ৩০-৪০ মাইল পশ্চিমে গভীর সমুদ্রে ভাসমান থাকা অবস্থায় তাদের উদ্ধার করে।
উদ্ধার হওয়া জেলেরা হলেন, কক্সবাজার জেলার মহেলখালী থানার শাপলাপুর গ্রামের আবুল কাশেম, মো. তৌহিদুল ইসলাম, কাইছার, মো. আলমগীর, মোস্তাক আহমেদ, মো. আব্দুস শুক্কুর, মো. ইয়াছিন, মো. ইলিয়াছ, মো. জসিম উদ্দিন, মো. মনির এবং নাজেম উদ্দিন, চকরিয়া থানার ফাসিয়াখালি গ্রামের মো. মোবারক এবং চরফ্যাশন থানার মো. আলমগীর। তারা সবাই ডুবে যাওয়া ‘এফ ভি রোহান’ এর মাঝিমাল্লা।
নৌবাহিনী সূত্র জানায়, ৩ নভেম্বর এফভি রোহান  মাছ ধরার উদ্দেশ্যে কক্সবাজার জেলার মহেশখালী হতে গভীর সমুদ্রে গমন করে। ফিশিং ট্রলারটি ঝড়ের পূর্বাভাস পেয়ে গত ৫ নভেম্বর  কূলে ফেরার পূর্বেই ঝড়ের কবলে পড়ে এবং ২৮ জন জেলেসহ গভীর সমুদ্রে ডুবে যায়। তিনদিন পানিতে ভাসমান থাকার পর এফভি সীমান্ত-১ তাদের অসুস্থ ও ভাসমান অবস্থায় খুঁজে পায়।
পরবর্তীতে সমুদ্রে টহলরত বাংলাদেশ নৌবাহিনী জাহাজ বানৌজা স্বাধীনতা কে উদ্ধারের জন্য বেতার যোগে আহবান করে। বানৌজা স্বাধীনতা উদ্ধারকৃতদের প্রাথমিক চিকিৎসা সেবা প্রদান করে এবং পরবর্তী চিকিৎসার জন্য পোতাশ্রয়ে নিয়ে আসে। অসুস্থ জেলেদেরকে নৌবাহিনীর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।
নৌবাহিনীর গোয়েন্দা পরিদপ্তরের অপারেশন্স শাখার সহকারী পরিচালক সাইদা তাপসী রাবেয়া স্বাক্ষরিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, বাকি জেলেদের উদ্ধারের জন্য বাংলাদেশ নৌবাহিনীর আরও দুটি জাহাজ বঙ্গবন্ধু ও মধুমতি কক্সবাজারের উপকূলীয় এলাকায় উদ্ধার অভিযান পরিচালনা করছে।

এ সম্পর্কিত আরও