সাব্বিরের রেকর্ডের দিনেও হেরে গেল রাজশাহী কিংস

প্রকাশিতঃ নভেম্বর ১৩, ২০১৬ at ৬:২৪ অপরাহ্ণ

sabbir

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) রাজশাহী কিংস ও বরিশাল বুলসের ম্যাচে মিরপুরের দর্শকরা ব্যাটসম্যানদের দাপট দেখলো। শুরুতে ব্যাট করা বরিশাল কিংসের হয়ে মুশফিকুর রহীম ও শাহরিয়ার নাফিস দুর্দান্ত ব্যাটিং করে দলের স্কোর এবারের বিপিএলে সর্বোচ্চ ১৯২ রানে পৌঁছে দেন।

মুশফিকের ব্যাট থেকে আসে অপরাজিত ৮১ রানে অপরাজিত ইনিংস। শুরুর দিকে অসাধারণ সব শটে সাজানো ৬৩ রানের ইনিংস খেলেন নাফিস।ব্যাটিং পারফর্মেন্সের পরবল হাতেও দারুন শুরু করে মুশফিক বাহিনী। ইনিংসের প্রথম ওভারেই রকিবুল হাসানকে ফেরান মনির হোসাইন।

দল চাপের মুখে থাকলেও ক্রিজে এসেই বোলারদের উপর চড়াও হন সাব্বির রহমান। শুরু থেকেই ব্যাটে বলে দারুন সংযোগ হচ্ছিল এই টাইগার ব্যাটসম্যানের।সাথে যোগ দেন মমিনুল হকও। দ্বিতীয় উইকেটে ৪৮ রানের জুটি গড়ে দলকে আশা যোগায় এই জুটি। কিন্তু ব্যাটিং পাওয়ায় প্লের শেষ ওভারে পেসার আল আমিন জোড়া আঘাত হানেন।

তুলে নেন মমিনুল ও উমর আকমলের উইকেট। জোড়া আঘাতের পরও সাব্বিরকে থামাতে পারছিল না মুশফিক বাহিনী। সাব্বির রহমান পরবর্তীতে সামিত প্যাটেলের সাথে অর্ধশত রানের জুটি গড়েন।তুলে নেন আবারের আসরের প্রথম ফিফটি। বরিশালের বোলারদের বেধড়ক পিটিয়ে সেঞ্চুরির পথে এগোতে থাকেন তিনি। মাঝ পথে প্যাটেলকে ফেরান আবু হায়দায় রনি।

কিন্তু রান রেটে চোখ রেখে প্রায় প্রতি ওভারে বাউন্ডারি হাঁকিয়ে ১৫তম ওভারে বিপিএল-৪ এর প্রথম সেঞ্চুরিতে পৌঁছে যান সাব্বির।সেঞ্চুরিয়ার সাব্বিরকে অবশেষে থামান ১৪ রানে সাব্বিরের সহজ ক্যাচ ছাড়া পেসার আল আমিন। ইনিংসের ১৬তম ওভারের শেষ বলে বড় শট খেলতে গিয়ে মিড উইকেটে ডেভিড মালানের হাতে থামে সাব্বিরের অবিশ্বাস্য ইনিংস।

৬১ বল খেলা সাব্বিরের ব্যাট থেকে আসে ১২২ রানের ইনিংস। ইনিংস জুড়ে নয়টি ছয় ও চারের মার এসেছে সাব্বিরের উইলো থেকে। সাব্বির বিদায় নিলেও অধিনায়ক স্যামির ব্যাটে ভালোই জবাব দিচ্ছিলো কিংসরা।কিন্তু ইনিংসের ১৯তম ওভারের শেষ বলে রায়ান এম্রিতের স্লো বলে পুল করতে গিয়ে বোল্ড হন দারুন খেলতে থাকা স্যামি। সহজ জয়ের ম্যাচটি কঠিন হয়ে পড়ে কিংসদের জন্য।

একই ওভারের শেষ বলে এক রান তুলে নিলে শেষ ছয় বলে জয়ের জন্য ৯ রানের দরকার ছিল। কিন্তু থিসারা পেরেরার শেষ ওভারে ব্যাট বলেই সংযোগ হচ্ছিলো না নরুল হাসান ও আবুল হাসান রাজুর।শেষ পর্যন্ত শ্বাসরুদ্ধকর এই ম্যাচে চার রানের জয় তুলে নিয়ে মাঠ ছাড়েন মুশফিক বাহিনী। নরুল ৫ ও আবুল ৩ রানে অপরাজিত থাকেন।

এ সম্পর্কিত আরও