ঢাকা : ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬, শনিবার, ২:১২ পূর্বাহ্ণ
সর্বশেষ
A huge collection of 3400+ free website templates JAR theme com WP themes and more at the biggest community-driven free web design site

নির্বাচকদের দলে ঠাঁই পেতে আর কত রান চাই শাহরিয়ারের?

shahriar nafees

জাহিদুল ইসলামজাহিদুল ইসলাম, বিডি টোয়েন্টিফোর টাইমস :  নির্বাচকদের দলে ঠাই পেতে আর কত রান চাই শাহরিয়ার নাফিসের। প্রশ্নটা কোটি টাইগার সমর্থকের। ক্যারিয়ারের বাজে সময়কে পেছনে ফেলে গেল ২ বছর ধরেই আছেন ফর্মের চূড়ায়। প্রথম শ্রেনীর ক্রিকেটে জাতীয় রেকর্ড ভেঙে দিয়ে গড়েছেন নতুন রেকর্ড। যেখানে বাংলাদেশী ব্যাটসম্যানদের মধ্যে এক ম্যাচে সবচেয়ে বেশি রান করার রেকর্ডটিও নিজের করে নিয়েছেন গত মৌসুমে। রীতিমত রানের বন্যা বইয়ে দিয়ে যাচ্ছেন সবধরনের ক্রিকেটেই। চলমান বিপিএলে টানা তিন ম্যাচে  ৩ ফিফটিতে নয়নাভিরাম সব শট খেলে হয়েছেন সর্বাধিক রান সংগ্রাহী ব্যাটসম্যাান। ১৫০ ছুই ছূই স্ট্রাইকরেট বলে দিচ্ছে একবারে টি টোয়েন্টি ধাঁচের ইনিংসই খেলেছেন শাহরিয়ার নফিস।

বাংলাদেশের প্রথম টি টোয়েন্টি অধিনায়কের বিরুদ্ধে অভিযোগ তিনি নাকি টি টোয়েন্টিতে বেমানান। যে কারণে প্রথম বিপিএলে সুযোগই পান নি। দ্বিতীয় বিপিএলে আক্ষেপ আর উপেক্ষার জবাব দিলেন বিপিএলে প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে সেঞ্চুরি করে। অার চলমান বিপিএলে তো সাকিব-তামিম-মুশফিক মাশরাফি সবাই শাহরিয়ার নাফিসের ব্যাটিংয়ের ভক্ত হয়ে গেছেন। প্রশংসা করতে কার্পন্য করেননি কেউই। বাংলাদেশের সর্বকালের সেরা ওপেনার তামিম ইকবাল তো বলেই ফেললেন তার দেখা সেরা বাংলাদেশি ব্যাটসম্যান শাহরিয়ার নাফিস।

ক্যারিয়ারের শুরুটাই হয়েছিলো রেকর্ড গড়ে। প্রথম ও একমাত্র বাংলাদেশি ক্রিকেটার হিসেবে  এক পঞ্জিকাবর্ষে হাজার রান করে নিজের অাগমনী বার্তা দিয়েছিলেন। এরপরই সেই আইসিএল নামের কালো অধ্যায়। নিজেকে যেন হারিয়ে খুঁজছিলেন। সেই যে ছন্দ পতন । মাঝে ২০১১ বিশ্বকাপে সুযোগ পেলেও নামের প্রতি সুবিচার করতে পারেন নি। দু:সময়কে পেছনে ফেলার সুযোগ পেয়েছিলেন বিশ্বকাপের পরও অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে দারুন একটি ফিফটিও হাঁকিয়ে ছিলেন। কিন্তু এরপর ১/২ টি ম্যাচে রান না পাওয়াতেই দল থেকে সেই যে বাদ পড়লেন ফের সুযোগ আসল ২০১৩ সালের শ্রীলঙ্কা সফরে। কিন্তু ব্যাট চাঁছতে গিয়ে নিজের হাত নাতো যেন নিজের কপালই কেটে ফেললেন শাহরিয়ার নাফিস।

এরপর থেকেই রানের উপরেই আছেন। কিন্তু কোন এক অজানা কারণে দলে শাহরিয়ার নাফিসের দড়জা বন্ধ! সেরা ফর্মে আছেন গত এক বছর ধরেই। এরপরও নির্বাচকদের মনে দাগ কাটতে পারেননি শাহরিয়ার নাফিস। শাহরিয়ারকে দলে নেয়ার ব্যাপারে সাংবাদিকরা নির্বাচকদের ভাবনা জানতে চাইলে যে উত্তর দিলেন তাতে কেবল শাহরিয়ার নন মন ভেঙে গেছে কোটি টাইগার সমর্থকদেরই। এমন অাকাশছোঁয়া ফর্মে থাকা একজন ক্রিকেটার সম্পর্কে নির্বাচকদের জবাব- দলে কোন জায়গাতে খেলবে সে?  জায়গা তো ফাঁকা নেই!

নির্বাচকদের আরও অভিযোগ তিনি নাকি আনফিট ক্রিকেটার। অথচ গেল ২ বছরে ২৭ কেজি ওজন কমিয়ে তিনি ফিরে গেছেন যেন  ক্যারিয়ারের সেই শুরুর দিনগুলোয়।  ব্যাটে রান আর চনমনে ভাবই বলে দিচ্ছে সব।

অথচ গত ৬ মাস ধরে নিজের ছায়া হয়ে আছেন সৌম্য সরকার। সেই সৌম্য সরকার ঠিকই নিউজিল্যান্ড সফরের দলে ঠাইঁ পেয়ে যান! বিস্ময় নাকি মহাবিস্ময়? ক্যারিয়ারের এমন ভালো অবস্থানে থেকেও যদি আর দলে ঠাই না পান তাহলে কি নির্বাচকরা চেয়ে আছেন শাহরিয়ার নাফিসের ফর্ম পড়ে যাওয়ার অপেক্ষাতে ? যেখানে তাকে দলে না নেয়ার যুুক্তি দিতে পারবেন? দল নির্বাচনে যুগ যুগ ধরেই কিছু না কিছু বিতর্ক রেখেই যান আমাদের নির্বাচকরা। যাদের পছন্দের দল সাজানোর বলি দিতে হয় শাহরিয়ার নাফিস, নাসির হোসেন ও রুবেল হোসেনদের মত পরীক্ষীত ক্রিকেটারদের। অার তাতে দুদিনের জন্য হলেও কপাল  খুলে যায় লিটন দাস, শুভাগত কিংবা কামরুল ইসলাম রাব্বিদের মত অপেক্ষাকৃত কম যোগ্য ক্রিকেটারদের।

কোচ কিংবা নির্বাচকদের এই গোড়ামি দূর হলে  বিশ্বকাপ দখতে পায় টাইগার সমর্থকরা। সেটা হাতের নাগালেই। দলে এখন বিশ্বমানের ক্রিকেটারের ছড়াছড়ি। সাকিব-তামিম-মুশফিকের পর তাসকিন-মুস্তাফিজ-মিরাজ মোসাদ্দেক। আছেন অধিনায়ক মাশরাফিও। এমন একটি দল বিশ্বকাপের স্বপ্ন দেখতেই পারে। সেখানে কেবল শতভাগ যোগ্যদেরই ঠাইঁ দিতে হবে। বিশ্বকাপের কথা মনে আছে তো? ভারতে অনুষ্ঠেও  আইসিসি ওয়ার্ল্ড টি টোয়েন্টিতে শেষ বলে ২ রান দরকার ছিলো। ১ রান করতে পারলেও সুপার ওভার হয়। সেই বলে স্ট্রাইকে ছিলেন শুভাগত। অনেকেই মনে করেন নাসির নামের একজন ফিনিশার থাকলে এত বড় আক্ষেপে পোড়তে হতো না।

কিংবা এশিয়া কাপের ফাইনালে শাহাদাত হোসেন। এরকম ১ জন ক্রিকেটারই আপনার সমস্ত অর্জন শেষ করে দিতে যথেষ্ট। তাই ক্ষমতার অপব্যবহার করে নিজের মনগড়া আর পছন্দ মত দল গড়বেন না। প্রিয় কোচ ও নির্বাচক দলটিকে বাংলাদেশ দলই করুন। কোচ কিংবা নির্বাচকের দল করবেন না প্লিজ। দেশের মানুষ এখন ক্রিকেটের নাড়ী-নক্ষত্র সবই বোঝেন কোন প্লেয়ার স্কোয়াডে আর কোন প্লেয়ার একাদশে যায়গা পেতে পারেন সেসবও বোঝেন খুব ভালো মতই। তাই দয়া করে দল নিয়ে আর কোন বিতর্ক তৈরি করবেন না। অফ ফর্মে থাকা সৌম্য সরকারের জায়গাতে ইনফর্ম শাহরিয়ার নাফিসকে শ্রেয়তার অল রাউন্ডার ও ফিনিশার হিসেবে শুভাগতের জায়গায় নাসির হোসেনকে এবং রাব্বি,শুভাশিশ,এবাদতদের জায়গায় রুবেল হোসেনকে নিলে আখেরে বাংলাদেশেরই লাভ হবে। সেই বোধদয় হউক কোচ নির্বাচকদের।

লেখক: জাহিদুল ইসলাম, সাবেক ক্রিকেটার- ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও ক্রিকেট অ্যানালিস্ট

ইমেইল : shajibdduir@gmail.com

 

এ সম্পর্কিত আরও

Check Also

20161202_100329

অসাধারণ ‘ডাবল’ অর্জনের সামনে তিন ইংলিশ

এমন একটি ‘ডাবল’ যেটি ক্রিকেট ইতিহাসের কোনো দেশের দুই ক্রিকেটার একই বছরে অর্জন করতে পারেননি। …

Mountain View

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *