ঢাকা : ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬, শুক্রবার, ৬:০০ পূর্বাহ্ণ
A huge collection of 3400+ free website templates JAR theme com WP themes and more at the biggest community-driven free web design site

সিলেটে যেভাবে উদ্ধার হলো ছিনতাইয়ের ৫৯ লাখ টাকা

500x350_5b2f2dbdf505812c23c0800c6e66708f_thumb02144d24142bcabb601e708c1b2a3cfbস্টাফ রিপোর্টার : সিএনজির নাম্বারের ওপর স্টিকার বসিয়ে ছিনতাই মিশনে এসেছিল ছিনতাইকারীরা। সিএনজির মূল নাম্বার যাতে না পায় সে কারণে তারা স্টিকার লাগিয়েছিল। কিন্তু ছিনতাইয়ের ঘটনার সময় কোম্পানির কর্মকর্তা প্রণব বাবু বুদ্ধি খাটিয়ে সিএনজি অটোরিকশার স্টিকার খুলে মূল নাম্বারটি টুকে নেন। আর ওই নাম্বারের সূত্র ধরে সিলেটে ছিনতাই হওয়া ৭০ লাখ টাকার মধ্যে ৫৯ লাখ টাকা উদ্ধার করেছে পুলিশ। টাকা উদ্ধার অভিযানে থাকা সিলেট মহানগর পুলিশের সিনিয়র কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনার পরপরই তারা নাম্বার নিয়ে বিআরটিএ অফিসে তল্লাশি চালান। এ সময় তারা বিআরটিএ অফিস থেকে সিএনজি অটোরিকশা মালিকের নাম সংগ্রহ করেন। মালিকের ঠিকানা মতো তারা বালুচর এলাকায় গিয়ে সিএনজি অটোরিকশার মালিককে পান। এরপর তারা ড্রাইভারের নাম্বার নিয়ে ট্র্যাকিং শুরু করেন। সিএনজির ড্রাইভার ছিল আনুর হক। সে বালুচর এলাকার আল ইসলাহ এলাকায় অবস্থান করছিল। মোবাইলে ট্র্যাকিং করে পুলিশ তার সন্ধানে।

 

পুলিশ অভিযানের আগে আনুর বস্তাসহ ওই টাকা নিয়ে অবস্থান করছিল নিজ বাসাতেই। এ সময় ছিনতাইয়ের ঘটনায় জড়িত অপর চালক কাওছার আহমদও আনুরের সঙ্গে একই বাসায় অবস্থান করছিল। পুলিশ তাদের আটকের পর প্রথমে সে টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনা অস্বীকার করে। পরে অবশ্য সে টাকার সন্ধান দেয়। তার সন্ধান মতো পুলিশ বাসা থেকেই ছিনতাই হওয়া ৭০ লাখ টাকার মধ্যে ৫৯ লাখ টাকা উদ্ধার করে। সিলেট মহানগর পুলিশের এডিসি মিডিয়া মো. রহমতুল্লাহ মানবজমিনকে জানিয়েছেন, রাতে থানায় টাকা গুনে ১০ লাখ টাকা কম পাওয়া যায়। তবে গ্রেপ্তারকৃতরা পুলিশকে জানিয়েছে, ছিনতাইয়ের পরপরই সঙ্গে থাকা আরো ৪-৫ জন যুবক ১০ লাখ টাকা নিয়ে পালিয়ে গেছে।

 

তাদের গ্রেপ্তারে পুলিশের অভিযান চলছে বলে জানান তিনি। তিনি জানান, ৭০ লাখ টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনায় পুলিশ তিনজনকে আটক করেছে। আটককৃতরা হলো সিলেট মহানগর পুলিশের জালালাবাদ থানাধীন নোয়াগাঁও গ্রামের মাসুক মিয়ার ছেলে আনুর হক ও বিশ্বনাথ উপজেলার লামাকাজি ইউনিয়নের চাঁনপুর গ্রামের মজর আলীর ছেলে কাওসার আহমদ। এদিকে, ছিনতাই ঘটনার পর ইউনিলিভারের সিলেট অফিসের স্বত্বাধিকারী আজিজুর রহমান বাদী হয়ে সিলেটের কোতোয়ালি থানায় মামলা করেছেন।

 
ধোপাগুলে গ্রেপ্তার ২ জন: সিলেট সদর উপজেলার ধোপাগুলে টেলিকম ব্যবসায়ীর কাছ থেকে টাকার ব্যাগ ছিনতাই করে পালিয়ে যাওয়ার সময় দুই ছিনতাইকারীকে আটক করেছে স্থানীয় জনতা। গত রোববার রাত সাড়ে ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। আটককৃতরা হলো কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার গৌরিনগর গ্রামের আবদুল হামিদের ছেলে ইসলাম উদ্দিন (২৫) ও সিলেট মহানগর পুলিশের বিমানবন্দর থানাধীন ফতেহগড় গ্রামের বাবুল মিয়ার ছেলে শাকিল আহমদ (২০)।
ছিনতাইয়ের শিকার টেলিকম ব্যবসায়ী লোকমান হোসেন জানান, রাত সাড়ে ১০টার দিকে তিনি দোকান বন্ধ করে টাকা নিয়ে বাড়িতে ফিরছিলেন। তখন দোকানের সামনে থেকেই ওই দুজন তার হাতে থাকা টাকার ব্যাগ ছিনিয়ে নিয়ে দৌড় দেয়। পরে তার চিৎকারে স্থানীয় লোকজন তাদের ধাওয়া করে ধোপাগুল বাজারের পাশের একটি টিলা থেকে ধরে পাকড়াও করে। খবর পেয়ে খাদিমনগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন, সদস্য নাজিম উদ্দিন ইমরান, ব্যবসায়ী নেতা নাসির উদ্দিনসহ এলাকার ব্যবসায়ীরা জড়ো হন। পরে বিমানবন্দর থানা পুলিশকে খবর দেয়া হয়।

 

থানার ওসি মোহাম্মদ মোশাররফ হোসেন জানান, পুলিশ দুই ছিনতাইকারীকে গ্রেপ্তার করেছে।
ধাওয়া খেয়ে পালালো ছিনতাইকারীরা: গত রোববার বিকালে সিলেট নগরীর জিন্দাবাজারে জনতার ধাওয়া খেলে পালিয়েছে ছিনতাইকারীরা। আম্বরখানা থেকে এক ব্যবসায়ী মোটরসাইকেলযোগে জিন্দাবাজারের দিকে আসছিলেন। খাদ্য অফিসের সামনে আসার পর ৪-৫টি মোটরসাইকেলে ১২-১৩ জন ছিনতাইকারী ওই ব্যবসায়ীর গতিরোধ করে টাকা ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা করে। এ সময় ব্যবসায়ীর চিৎকারে পথচারীরা এগিয়ে এলে দুটি মোটরসাইকেল ফেলে ছিনতাইকারীরা পালিয়ে যায়। ফেলে যাওয়া মোটরসাইকেল দুটির মধ্যে একটি ডিসকভার (সিলেট ল-১১-৬৪৯৩) ও অন্যটি পালসার (সিলেট ল-১১-৮৮৬৬) মডেলের। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল গিয়ে মোটরসাইকেল দুটি জব্দ করে। কোতোয়ালি থানার এএসআই নূরুল ইসলাম জানান, ছিনতাইকারীদের ফেলে যাওয়া মোটরসাইকেল জব্দ করা হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িতদের আটকের চেষ্টা চলছে।
দুই ছিনতাইকারী ৭ দিনের রিমান্ডে
ইউনিলিভার বাংলাদেশের ৭০ লাখ টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনায় গ্রেপ্তার ছিনতাইকারী কাওসার আহমদ (২৩) ও আইনুল হককে (১৪) ৭ দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছে কোতোয়ালি থানার পুলিশ। আইনুল হক ও কায়সারকে ৭ দিনের রিমান্ডে নিতে সোমবার সিলেটের চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট সাইফুজ্জামান হিরোর আদালতে আবেদন করে পুলিশ। আদালত রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এদিকে ৭০ লাখ টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনায় কোতোয়ালি থানায় একটি ডাকাতি মামলা এবং শাহপরাণ থানায় অস্ত্র মামলা হয়েছে। ইউনিলিভারের সিলেট অঞ্চলের ডিস্ট্রিবিউটরদের বাদী হয়ে রোববার রাতে থানায় একটি ডাকাতি মামলা দায়ের করেছেন।

মামলায় ঘটনার মূল হোতা মোস্তাকিম আহমদ সুজন এবং গ্রেপ্তার সিলেটের জালালাবাদ থানার নোয়াগাঁও গ্রামের মাসুক মিয়ার ছেলে আইনুল হক (১৪) এবং সিলেটের লামাকাজীর চানপুর গ্রামের মজর আলীর ছেলে কাওসার আহমদকে (২৩) আসামি করা হয়েছে। মামলায় অজ্ঞাত আরো কয়েকজনকে আসামি করা হয়েছে। শাহপরাণ থানার ওসি শাহজালাল মুন্সি জানান, ঘটনাস্থল থেকে ধারালো অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনায় কোতোয়ালি থানার এসআই এবাদ উল্লাহ বাদী হয়ে শাহপরাণ থানায় অস্ত্র আইনে আরেকটি মামলা দায়ের করেছেন। মামলায় উল্লেখ তিনজনসহ অজ্ঞাতনামা আরো কয়েকজনকে আসামি করা হয়েছে।

গত রোববার বেলা ১টার দিকে কাজিটুলা মক্তব গলি এলাকায় ইউনিলিভার বাংলাদেশের সিলেট অঞ্চলের ডিস্ট্রিবিউটরদের ৭০ লাখ টাকা ছিনতাই হয়। এর ৬ ঘণ্টার মাথায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা অভিযান চালিয়ে নগরীর বালুচর আল ইসলাহ ১৬০ নম্বর ছিনতাইকৃত ৭০ লাখ ৭০ হাজার টাকাসহ দুই ছিনতাইকারীকে আটক করতে সক্ষম হয়। এ সময় দুটি সিএনজি অটোরিকশা এবং বাসার মালিক ও কেয়ারটেকারকে পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করে।

এ সম্পর্কিত আরও

Check Also

আজ ৮ ডিসেম্বর কুমিল্লা,পটুয়াখালী মুক্ত দিবস

আজ  ৮ ডিসেম্বর পটুয়াখালী ও কুমিল্লা মুক্ত দিবস। ১৯৭১ সালের এই দিনে হানাদার মুক্ত হয় …

Mountain View

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *