ঢাকা : ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭, শনিবার, ১০:৩৩ পূর্বাহ্ণ
সর্বশেষ
A huge collection of 3400+ free website templates JAR theme com WP themes and more at the biggest community-driven free web design site

কুলিয়ারচর বনবিভাগে কর্মরত পিয়নের বিরুদ্ধে দ্বাড়িয়াকন্দি-বেলাব রাস্তার গাছ কাটার অভিযোগ

বিশেষ প্রতিনিধি, মোঃ মাইন উদ্দিনঃ কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচর উপজেলার দ্বাড়িয়াকান্দি-বেলাব রাস্তার দুই পাশে সিপিআর নামের একটি এনজিওর রোপিত প্রায় ৩-৪ কোটি টাকা মুল্যের গাছ কেটে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে এই উপজেলার বনবিভাগে কর্মরত (পিয়ন) মোঃ মুছা মিয়াসহ আরো কয়েক জনের বিরুদ্ধে। অভিযোগকারি সংস্থা সিপিআর প্রতিনিধি হোসেন মোহাম্মদ ওয়াহিদ সাংবাদিকদের জানান, উপজেলার দ্বাড়িয়াকন্দি-বেলাব ৮ কিলোমিটার রাস্তার দুই পাশে তাঁরা নানা প্রজাতির প্রায় ৪ হাজার গাছ রোপন করেন।

তাঁদের রোপিত এসব গাছ গত ২০/২৫ দিন যাবত্ কুলিয়ারচর উপজেলার এলজিইডি’র কাজে নিয়োজিত একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান দ্বাড়িয়াকান্দি-বেলাব রাস্তাটি প্রশস্ত করণের সময় এসব অবাধে কেটে ফেলেন। পরে গাছগুলো বনবিভাগে কর্মরত (পিয়ন) মোঃ মুছা মিয়া ওস্হানীয় কিছু লোকদের মাধ্যমে রাতের আধাঁরে অন্যত্র সরিয়ে নিয়ে বিক্রি করে দেন।বিষয়টি তাঁরা জানতে পেরে সিপিআর এর প্রতিনিধি হোসেন মোহাম্মদ ওয়াহিদ বাদী হয়ে গত ৭ নভেম্বর কুলিয়ারচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন ।

অভিযোগে তাঁরা উল্লেখ করেন, রাস্তা নির্মাণকারি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে বন বিভাগে কর্মরত (পিয়ন) মোঃ মুছা মিয়া, এমদাদ মিয়াসহ ৪১ জন মিলেএকটি কমিটি গঠন করে সে কমিটির মাধ্যে অবাধে কেটে নিয়েছে যায় সিপিআর এনজিওর রোপিত প্রায় ৪ হাজার গাছ সিপিআর প্রকল্প পরিচালক মোঃ রাসেল মিয়া সাংবাদিকদের জানান, সিপিআর এনজিওটি ১৯৯০-৯৪ সালে দ্বাড়িয়াকান্দি থেকে নাপিতেরচর পর্যন্ত প্রায় ৮ কিলোমিটার রাস্তার দুই পাশে শিশু, বাবলাসহ বিভিন্নপ্রজাতির ৪ হাজার গাছ রোপণ করেন। এসব গাছএখন বড় হয়ে বর্তমান বাজার দর অনুযায়ী যখন ৩-৪কোটি টাকা মূল্য মানের হয়েছে, তখন এসব গাছ একটি মহলের যোগসাজশে রাতের আধাঁরে কেটে নিয়ে যায় ।

গাছ কাটার ব্যাপারে ব্যাপারে সালুয়া ইউনিয়নের এক সাবেক চেয়ারম্যান সাংবাদিকদের জানান, দ্বাড়িয়াকান্দি-বেলাব রাস্তার দুই পাশে ৪-৫ হাজার গাছ সিপিআর নামের একটি এনজিও রোপন করেছিল, আরএখন দেখছি জমির মালিকদের পাশাপাশি বনবিভাগের এক পিয়নের মাধ্যমে এলাকার কিছু অসাধুলোক সিপিআর এনজিও’র রোপিত গাছগুলো কেটে নিচ্ছে ।

এ ব্যাপারে কুলিয়ারচর বনবিভাগের দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তা মোঃবজলুর রহমান সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে বলেন, সিপিআর নামের এনজিও’র গাছ রোপণের বিষয়ে আমার জানা নেই।তবে তাঁরা গাছ রোপণ করে থাকলে এর লভ্যাংশ উপকারভোগী ও বনবিভাগ পাবে বলে তিনি স্বীকার করেন।

এ সম্পর্কিত আরও

Best free WordPress theme

Check Also

গাংনীতে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত ফেরারী আসামী রুহ ডাকাত ২টি বোমাসহ আটক

মেহেরপুরের গাংনীতে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত ফেরারী আসামী আব্দুর রহমান ওরফে রুহ ডাকাত ২টি হাত বোমাসহ পুলিশের …