ঢাকা : ৪ ডিসেম্বর, ২০১৬, রবিবার, ১:৫৯ পূর্বাহ্ণ
সর্বশেষ
রামোসই বাঁচালেন রিয়াল মাদ্রিদকে রাজধানীতে শিক্ষকের অমানবিক নির্যাতনে শিশু শিক্ষার্থী আহত মধ্যবর্তী নির্বাচন নিয়ে প্রধানমন্ত্রী বললেন ‘স্বপ্ন দেখা ভালো’ এখনো বেঁচে আছি, এটাই গুরুত্বপূর্ণ : প্রধানমন্ত্রী আলাদা বিমান কেনার মতো বিলাসিতা করার সময় আসেনি: প্রধানমন্ত্রী চলছে স্প্যানের লোড টেস্ট দৃশ্যমান হতে চলেছে স্বপ্নের পদ্মা সেতু চীন ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে উত্তেজনার সৃষ্টি হতে পারে! ১৭ বছর বয়সী আফিফ নেট থেকে মাঠে অত:পর গেইলদের গুড়িয়ে দিলেন (ভিডিও) রংপুর জেতায় ছিটকে গেলো কুমিল্লা-বরিশাল আইএস জঙ্গিদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ইরাকে নিরাপত্তা বাহিনীর ১৯৫৯ সদস্য নিহত
A huge collection of 3400+ free website templates JAR theme com WP themes and more at the biggest community-driven free web design site

দিনে ছেলে ধর্ষণ করতো, রাতে বাবা!

fb_20161117_10_22_44_saved_pictureআন্তর্জাতিক ডেস্কঃ  অসহায় এক কিশোরী কাজের মেয়েকে দিনের পর দিন ভয়ভীতি দেখিয়ে ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার হয়েছেন এক অশিতিপর বৃদ্ধ এবং তার ছেলে। বুধবার তাদেরকে হায়দরাবাদের বাসা থেকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। আটক অভিযুক্ত দুই বাপ-ছেলেই পেশায় আইনজীবী বলে জানিয়েছে পুলিশ।
 
ঘটনার শিকার অসহায় ঐ কিশোরীকে বর্তমানে মেডিক্যাল চেকআপের জন্য স্থানীয় হাসপাতালে রাখা হয়েছে। কিশোরীর প্রাথমিক জবানবন্দীর বরাত দিয়ে হায়দারাবাদ পুলিশ স্থানীয় সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছে, বাড়িতে গৃহকত্রীর অনুপস্থিতি ছিলো অনেকদিন ধরেই। বাপ-ছেলের সংসারে কাজে যোগ দেবার কিছুদিন পর হুট করে একরাতে বাড়িতে বাবার অনুপস্থিতে রাতভর অমানুষিক নির্যাতন ও বারকয়েক ধর্ষণের শিকার হয় সে।
 
প্রথমদিনের ঘটনা বর্ননায় কিশোরী জানায়, প্রথমদিন (ঘটনার রাতে) খাবার গরম করে দেবার কথা বলে ভরত দাদা দরোজায় নক করলে রাত আনুমানিক এগারোটায় সরল বিশ্বাসে দরোজা খুলে দেয় সে। এরপর আকস্মিক ভরত দা তাকে জড়িয়ে ধরে বিছানায় টেনে নিয়ে গেলে সে চিতকার করতে চায় । এসময় ভরত দা তাকে নানা প্রলোভন দেখায়, এতে করে চিৎকার না থামলে ঘরে থাকা চাকু’র (দেশিয় অস্ত্র) মুখে রাতভর বেশ কবার ধর্ষণ করে।
 
কিশোরীর বক্তব্যের উদ্ধৃতি দিয়ে পুলিশ আরও জানায়, সেদিন ভোররাতে রক্তাক্ত অবস্থায় তাকে ঘরে ফেলে রেখে বাইরে থেকে তালা দিয়ে যাবার সময় হুমকি দিয়ে যায় এই বলে যে, কাউকে জানালে ‘ মেরে ফেলবে তাকে’। প্রচন্ড ব্যাথায়, লজ্জায়, অপমানে দিনভর ঘরে শুয়ে থাকে সে। সে রাতেও কর্তা বাসায় ফিরে না আসায় ফের রাতভর অসুস্থ্য দুর্বল শরীরে রাতভর ধর্ষণের শিকার হয় লম্পট ভরতের কাছে ।
 
এরপরদিন কর্তা বাড়ি ফেরার পর ভরতের অনুপস্থিতে কিশোরী ভয় চোখেই সব কথা খুলে বিচার চায় কর্তা সুধাকর রেড্ডি (৬০) এর কাছে। কিশোরীর ভাষ্য অনুযায়ী, কর্তাবাবু মনযোগ দিয়ে সবকথা শুনে সেদিন কোর্টে না গিয়ে বাসায় থাকে। তাকে বারবার আশ্বস্তও করে ‘এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার করবেন তিনি’। এমনকি পার্শের ফার্মেসি থেকে ব্যথানাশক ঔষধ এনে তাকে খেতে দেন। কিন্তু বিধি বাম! ঔসধ খাবার পর প্রচন্ড ঘুমে কিশোরীর চোখ টলমল করতে থাকে। বিচার তো দুরের কথা উলটো দুর্বল শরীরে বাবার বয়সি কর্তাবাবুর কাছে দিনভর বিকৃত লালসার শিকার হয় সে। শরীরের বিন্দুমাত্র শক্তিও অবশিস্ট ছিলোনা যা দিয়ে প্রতিবাদ করতে পারে সে ।
 
পুলিশ জানিয়েছে, গ্রেফতার হওয়া ৬০ বছর বয়সী ওই বৃদ্ধের নাম সুধাকর রেড্ডি। একইসঙ্গে গ্রেফতার করা হয়েছে তার ছেলে ভরতকুমার রেড্ডিকেও (৩০)। তারা দু’জনেই পেশায় আইনজীবী।
 
হায়দরাবাদের চৈতন্যপুরীর গ্রিনহিলস কলোনিতে মাস ছয়েক আগে ওই নাবালিকা কিশোরী কে গৃহপরিচারিকার কাজে রাখে রেড্ডি পরিবার। কাজ শুরুর কয়েক দিন পর থেকেই মায়ের অনুপস্থিতির সুযোগ নিতে শুরু করেন ছেলে ভরতকুমার। একইভাবে সুধাকর তার স্ত্রীর অনুপস্থিতিতে নাবালিকার উপর শারীরিক নির্যাতন চালাতে শুরু করেন বলে অভিযোগ।
 
প্রথম প্রথম ভয়ে কাউকেই কিছু বলতে পারেনি নাবালিকা মেয়েটি। পরে বিষয়টি জানাজানি হলে তাকে বেধড়ক মারধরও করা হয় বলে পুলিশকে জানিয়েছে কিশোরী ।
 
তদন্তকারি কর্মকর্তা জানিয়েছে, এমনকী বাইরের কারও সঙ্গেই যোগাযোগ করতে দেওয়া হতো না তাকে। কলোনির অন্য বাসিন্দাদের সন্দেহ হওয়ায় তারাই পুলিশে খবর দেয়।পুলিশ মেয়েটিকে উদ্ধার করে। অভিযোগ পেয়ে গ্রেফতার করা হয় ওই দুই লম্পট আইনজীবী পিতা-পুত্র কে ।কিশোরীর গ্রামের বাড়ি দুরবর্তি একটি গ্রামে সেখানে তার অভিভাবকের সাথেও যোগাযোগ করা হয়েছে।অসহায় মেয়েটিকে ডাক্তারি পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে প্রাথমিকভাবে সেইফহোমে পাঠানো হবে পরে আত্মিয়দের হাতে তুলে দেয়া হতে পারে ।

এ সম্পর্কিত আরও

Check Also

12345

সুন্দরবন রক্ষায় রামপাল নিরাপদ দুরত্বে বিদুৎ কেন্দ্র স্থাপনের দাবীতে মানববন্ধন

দিনাজপুর জেলা প্রতিনিধি ॥ জাতীয় ও বিশ্ব ঐতিহ্য সুন্দরবন রক্ষায় রামপালের পরিবর্তে নিরাপদ দুরত্বে বিদুৎ …

Mountain View

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *