ঢাকা : ২৯ জুলাই, ২০১৭, শনিবার, ৫:৫২ অপরাহ্ণ
A huge collection of 3400+ free website templates JAR theme com WP themes and more at the biggest community-driven free web design site
Home / সারাদেশ / সারিয়াকান্দিতে প্রতিবন্ধী আমিরুল’কে প্রকৌশলী হিসেবে গড়তে চাই – রাব্বি

সারিয়াকান্দিতে প্রতিবন্ধী আমিরুল’কে প্রকৌশলী হিসেবে গড়তে চাই – রাব্বি

received_1769814709948086

তাজুল ইসলাম: সদ্য শুরু হওয়া প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরিক্ষা/১৬ইং এ আমিরুল ইসলাম (১০) নামের এক জন্মগত বাক প্রতিবন্ধী ছত্র পরিক্ষায় অংশ নিয়েছে।

গত রবিবার ২০ নভেম্বর সকাল ১০ঘটিকায় উপজেলার কুতুবপুর উচ্চ বিদ্যালয় পরিক্ষা কেন্দ্রে তার সন্ধান পাওয়া যায়। যার শিক্ষার্থী আই ডি নং- ১১২০১৬১১০১০০৩৬১৬ এবং রোল নম্বর-৩৬১৬।

আমিরুল ইসলাম উপজেলার কর্ণিবাড়ি ইউনিয়নের পারদেব ডাংগা নয়াপাড়া রেজিস্টার বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র। এবং একই গ্রামের মোঃ গেদু প্রাং এবং মোছাঃ মোর্শেদা বেগম এর নিম্মবৃত্ত পরিবারের দ্বিতীয় সন্তান। সে জন্মগতভাবে বাক প্রতিবন্ধী হওয়ার কারনে অন্য দশজন শিক্ষার্থীর মতো মন খুলে কাশে কথা বলতে এবং শ্রেণিতে মুখে পড়া দিতে না পাড়লেও পরিবারের সদস্যদের এবং বিদ্যালয়ের শিক্ষদের সার্বিক সহযোগিতায় পড়া-লেখা চালিয়ে আসছে।

এব্যাপারে পরিক্ষা কেন্দ্রে আসা ফজলে রাব্বি (বড় ভাই)’র সাথে কথা হলে তিনি বলেন, আমিরুল জন্মগতভাবে একজন বাক প্রতিবন্ধী। এবং সমাজের অন্য দশজন শিক্ষার্থীর মতো ততোটা চঞ্চল না হলেও আমরা তাকে পড়া-লেখা বন্ধ রাখিনি। সে কথা বলতে না পারলেও আকার ইঙিতে অনেক কিছু বোঝে এবং পড়া-লেখায় বেশ মনোযোগী । অন্য দশজন শিক্ষার্থীর অভিভাবক বাবা-মার, ভাই-বোনদের মতো আমিরুল’কে নিয়ে আমাদেরও অনেক স্বপ্ন ছিল। সে বড় হয়ে এবং উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ করে আমাদের মুখোজ্জ্বল করবে। বর্তমান সরকার মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অন্য দশজন স্বাভাবিকভাবে চলাফেরা করা ও কথা বলা শিক্ষার্থীর মতো প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের জন্য অতিরিক্ত বিশেষ সুযোগ-সুবিধা দেবার কারনে আমাদের স্বপ্নটা পূরণ হওয়ার সম্ভাবনা দেখছি।

বর্তমান সরকার অটিজম (প্রতিবন্ধী) শিক্ষার্থীরদের জন্য শিক্ষাবৃত্তির পাশাপাশি আলাদা প্রতিবন্ধী ভাতা দিয়ে আসছেন। এতে আমাদের আমিরুলের লেখা-পড়ার খরচ চালিয়ে যাওয়া অসুবিধা হয়না। সে মন খুলো কথা বলতে না পারলেও হাউস ওয়ারিং বা ইলেট্রিকাল কাজে পারদর্শী আছে। আমাদের পরিবারের সকলের ইচ্ছা ওকে ইলেট্রিকাল ইঞ্জিনিয়ার (যান্ত্রিক প্রকৌশলী) হিসেবে গড়ে তুলব।

এ ব্যপারে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলাম এর সাথে কথা হলে তিনি বলেন, অটিম বা সর্ব প্রতিবন্ধী কোন শিক্ষার্থী দেশের বোঝা নয়, বরং দেশের সম্পদ।

তাই আমরা সকলে কোনো প্রতিবন্ধী শিশুকে শিক্ষা গ্রহণ থেকে বঞ্চিত না করে পাঠগ্রহণ চালিয়া যাব। এদের জন্য সরকার নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন এবং আরও যাবেন।

এ সম্পর্কিত আরও

আপনার-মন্তব্য