ঢাকা : ১১ ডিসেম্বর, ২০১৬, রবিবার, ১২:০৮ অপরাহ্ণ
A huge collection of 3400+ free website templates JAR theme com WP themes and more at the biggest community-driven free web design site

সশস্ত্র বাহিনী আমাদের জাতির অহংকার : প্রধানমন্ত্রী

85d019acc83906cdd43ea46d16ecb191x720x480x68প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, তার দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কখনই সশস্ত্র বাহিনীকে ক্ষমতায় যাওয়ার হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করেনি, বরং বরাবরই চেয়েছে একে একটি শক্তিশালী, সুশৃংখল এবং মর্যাদাপূর্ণ বাহিনী হিসেবে গড়ে তুলতে।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা গণতন্ত্রে বিশ্বাস করি। সশস্ত্র বাহিনীকে কখনও আমাদের ক্ষমতা দখলের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করিনি। …বরং চেয়েছি শান্তি ও নিরাপত্তা স্থাপন করে একে একটি সুন্দর সংগঠন হিসেবে গড়ে তুলতে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উজ্জীবিত সশস্ত্র বাহিনী আমাদের জাতির অহংকার।’ শেখ হাসিনা আজ বিকেলে ঢাকা সেনানিবাসের সেনাকুঞ্জে সশস্ত্র বাহিনী দিবস উপলক্ষে আয়োজিত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে ভাষণে একথা বলেন।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ যখনই ক্ষমতায় এসেছে সশস্ত্র বাহিনীর উন্নয়নে কাজ করেছে। কারণ আমরা গণতন্ত্রে বিশ্বাস করি। সশস্ত্রবাহিনীকে কখনও আমাদের ক্ষমতা দখলের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করিনি। ক্ষমতা দখলের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করে বারবার ক্যু করে সশস্ত্র বাহিনীর শত শত অফিসার-সৈনিকদের হত্যা করিনি। আমরা চেয়েছি শান্তি ও নিরাপত্তা স্থাপন করে একে একটি সুন্দর সংগঠন হিসেবে গড়ে তুলতে এবং এই সশস্ত্র বাহিনী যেন আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন হয়। শুধু বাংলাদেশের জনগণের নয়, সারা বিশ্বব্যাপী আস্থা-বিশ্বাস যেন অর্জন করতে পারে সেদিকে লক্ষ্য রেখেই আমরা বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছি।

সশস্ত্র বাহিনী দিবস উপলক্ষে সবাইকে শুভেচ্ছা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের ইতিহাসে আজকের এই দিনটি এক বিশেষ গৌরবময় স্থান দখল করে আছে। যুদ্ধের বিজয়কে ত্বরান্বিত করতে ১৯৭১ সালের এই দিনে সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনীর অকুতোভয় সদস্যরা যৌথভাবে দখলদার বাহিনীর বিরুদ্ধে আক্রমণের সূচনা করে। সর্বস্তরের মুক্তিযোদ্ধা ও মিত্র বাহিনীর সাথে সম্মিলিত বাহিনীর ঐক্যবদ্ধ আক্রমণে পর্যুদস্ত দখলদার বাহিনী আত্মসমর্পণে বাধ্য হয়। যার ফলশ্রুতিতে আমরা অর্জন করেছি স্বাধীন ও সার্বভৌম বাংলাদেশ।
শেখ হাসিনা বলেন, ‘স্বাধীনতা যুদ্ধে সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের মহান আত্মত্যাগ ও বীরত্ব গাঁথা জাতি গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করে।’

জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী, মন্ত্রী পরিষদ সদস্যবৃন্দ, বিরোধীদলীয় নেত্রী বেগম রওশন এরশাদ, সংসদ সদস্যবৃন্দ, তিন বাহিনী প্রধানগণ, সশস্ত্র বাহিনীর সদস্য এবং তাঁদের পরিবারের সদস্যবৃন্দ, বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেত্রীবৃন্দ, বেসরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানের শীর্ষ কর্মকর্তাবৃন্দও অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উজ্জীবিত সশস্ত্র বাহিনী আমাদের জাতির অহংকার। আমি তাদের উত্তরোত্তর সমৃদ্ধি কামনা করি। আপনারা শৃঙ্খলা ও পেশাগত দক্ষতায় সর্বত্র প্রশংসিত হতে পারেন। দেশের প্রতিরক্ষা ও দেশ গড়ার কাজে অবদান রেখে আমাদের সশস্ত্র বাহিনীর প্রতিটি সদস্য নিজেদের গৌরব সমুন্নত রাখতে পারবেন-এই বিশ্বাস আমার আছে।

তিনি বলেন, ২৬ মার্চ স্বাধীনতা ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গেই জাতির পিতাকে গ্রেফতার করা হয়। কিন্তু তারই সহযোগিরা তারই নির্দেশ এবং ব্যবস্থা অনুসারে এই স্বাধীন বাংলাদেশ সরকার গঠন করেন। যে সরকারের প্রথম রাষ্ট্রপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, উপ-রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম, প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমেদ। কঙ্গবন্ধুর অবর্তমানে যুদ্ধ চালিয়ে যাবার জন্য সৈয়দ নজরুল ইসলাম অস্থায়ী রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব গ্রহণ করেন। ১৭ এপ্রিলে মুজিবনগরে স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম গণতান্ত্রিক সরকার শপথ গ্রহণ করে।

শেখ হাসিনা বলেন, বাংলার মানুষ- কৃষক, শ্রমিক, ছাত্র-শিক্ষক, জনতা এবং আমাদের বিভিন্ন বাহিনীর যারা বাঙালি সদস্যরা ছিলেন প্রত্যেকেই মুক্তিযদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েন। এরই এক পর্যায়ে একাত্তরের ২১ নভেম্বর আমাদের এই সশস্ত্রবাহিনী প্রতিষ্ঠা করে সর্বাত্মক যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ে এবং ১৬ ডিসেম্বর ১৯৭১ সালে বাংলাদেশ শত্রু মুক্ত হয়।

১৯৭২ সালের ১০ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তানের কারাগার থেকে দেশে ফিরেই বঙ্গবন্ধু জাতি রাষ্ট্র পুনর্গঠনের সঙ্গে সঙ্গে বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীকেও সর্বাধুনিক একটি বাহিনী হিসেবে গড়ে তোলার উদ্যোগ নেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশের পুনর্গঠন এই বৃহৎ জনগোষ্ঠীর জন্য অন্ন সংস্থান, এককোটি শরণার্থী এবং ৩ কোটি গৃহহীন এবং সম্ভ্রমহারা মা-বোনদেরকে পুনর্বাসনের মধ্যে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের লক্ষ্য ছিল একটি দক্ষ ও চৌকস সশস্ত্র বাহিনী গড়ে তোলা।’

তিনি বলেন, সেনাবাহিনীর প্রশিক্ষণ ও সাংগঠনিক কাঠামোর উন্নতিকল্পে বঙ্গবন্ধু মিলিটারি একাডেমী, কম্বাইন্ড আর্মড স্কুল ও প্রতিটি কোরের জন্য ট্রেনিং স্কুলসহ আরও অনেক সামরিক প্রতিষ্ঠান স্থাপন করেছিলেন।
বঙ্গবন্ধুই নৌবাহিনীকে সুসংগঠিত করার লক্ষ্যে একইসাথে ঢাকা, চট্টগ্রাম ও খুলনায় বাংলাদেশ নৌবাহিনীর তিনটি ঘাঁটি উদ্বোধন করেন।

প্রধানমন্ত্রী সশস্ত্র বাহিনীর আধুনিকায়নে

বঙ্গবন্ধুর উদ্যোগ সম্পর্কে বলেন, বঙ্গবন্ধুর ব্যক্তিগত উদ্যোগে ভারত ও যুগোশ্লাভিয়া থেকে নৌবাহিনীর জন্য যুদ্ধ জাহাজ সংগ্রহ করা হয়। একইভাবে বিমান বাহিনীর উন্নয়নের জন্য বঙ্গবন্ধুর দূরদর্শী ও বলিষ্ঠ সিদ্ধান্তে ১৯৭৩ সালেই সে সময়ের অত্যাধুনিক সুপারসনিক মিগ-২১ যুদ্ধবিমানসহ হেলিকপ্টার ও পরিবহন বিমান এবং এয়ার ডিফেন্স র‌্যাডার ইত্যাদি সংযোজনের মাধ্যমে এদেশে একটি আধুনিক বিমান বাহিনীর প্রকৃত যাত্রা শুরু হয়।

তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু সশস্ত্র বাহিনীর যে সুদৃঢ় ভিত্তি রচনা করে গেছেন তারই উপর দাঁড়িয়ে আজ আমাদের সশস্ত্র বাহিনীর পেশাদারিত্ব এবং কর্মদক্ষতার পরিচিতি দেশ ছাড়িয়ে আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে স্বীকৃত ও প্রশংসিত।’

সশস্ত্র বাহিনী আজ তাদের নানাবিধ জনসেবামূলক কর্মকাণ্ডের জন্য জনগণের নির্ভরতা অর্জন করছে। দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষার পাশাপাশি প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলাসহ উদ্ধার তৎপরতা ও অন্যান্য অভ্যন্তরীণ সংকট নিরসনকল্পে সশস্ত্র বাহিনী দেশপ্রেমের এক অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে।

প্রধানমন্ত্রী জাতিগঠনে বর্তমান সময়ে সশস্ত্রবাহিনীর ভূমিকা তুলে ধরতে গিয়ে বলেন, পেশাগত দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি সশস্ত্র বাহিনী দেশের বিভিন্ন স্থানে রাস্তাঘাট ও অবকাঠামো নির্মাণ, আশ্রয়ণ প্রকল্পসহ বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা এবং জাটকা নিধন রোধসহ বিভিন্ন জাতি গঠনমূলক ও আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন কর্মকা-ে বেসামরিক প্রশাসনকে সহায়তা করে চলেছে। এছাড়াও ডিজিটাল বাংলাদেশ গঠনে সশস্ত্র বাহিনী উল্লেখযোগ্য অবদান রেখে চলেছে। এই সকল কল্যাণমুখী ও জনহিতকর কর্মকান্ডের জন্য সরকারের পক্ষ থেকে সশস্ত্র বাহিনীর সকল সদস্যদের আমি অভিনন্দন জানাই।

আন্তর্জাতিক শান্তি, স্থিতিশীলতা ও নিরাপত্তা রক্ষার ক্ষেত্রে আমাদের সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যগণ বিশ্ব দরবারে ভূয়সী প্রশংসা অর্জন করেছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে আমাদের সরকারের জোরালো দাবির প্রেক্ষিতে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশন সাইপ্রাসে ফোর্স কমান্ডার, সেন্ট্রাল আফ্রিকা এবং সুদানে ডেপুটি ফোর্স কমান্ডারসহ অন্যান্য মিশনসমূহে জ্যেষ্ঠ নেতৃত্বে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর অফিসারগণের পদায়ন ঘটেছে।
প্রধানমন্ত্রী শান্তিরক্ষা বাহিনীতে নিহত সদস্যদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করে বলেন, দায়িত্ব পালনকালে বাংলাদেশের অনেক শান্তিরক্ষী শাহাদৎ বরণ করেছেন। সশস্ত্র বাহিনী দিবসের এই মহান দিনে আমি তাঁদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি।

সশস্ত্র বাহিনীকে একবিংশ শতাব্দীর চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় সক্ষম করে তোলার জন্য তার সরকার কার্যকরী পরিকল্পনা গ্রহণ ও পরিকল্পনার বাস্তবায়ন করছে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্দেশে প্রণীত প্রতিরক্ষা নীতিমালার আলোকে ফোর্সেস গোল-২০৩০-এর আওতায় তিন বাহিনীর পুনর্গঠন ও আধুনিকায়নের কার্যক্রমসমূহ পর্যায়ক্রমে বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।

সেনাবাহিনীর উন্নয়ন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বর্তমান সরকার দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতা গ্রহণের পর দেশের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা সুদৃঢ়করণ এবং সেনাবাহিনীর উন্নয়ন ও সম্প্রসারণের অংশ হিসেবে নতুন পদাতিক ডিভিশন ও বেশ কিছু ব্রিগেড প্রতিষ্ঠা করেছে। বর্তমান সরকারের চলতি মেয়াদে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর প্রশিক্ষণ, অস্ত্র, সরঞ্জামাদি ও জনবলের ক্ষেত্রে অভূতপূর্ব উন্নতি সাধিত হয়েছে।

শেখ হাসিনা বলেন, সেনাবাহিনীর সাংগঠনিক কাঠামোতে ব্যাপক পরিবর্তন সাধিত হয়েছে। পদ্মা সেতুর আনুষঙ্গিক অবকাঠামো নির্মাণ এবং নিরাপত্তার জন্য একটি কম্পোজিট ব্রিগেড গঠন করা হয়েছে। এছাড়া মিঠামইনে একটি রিভারাইন ব্রিগেড প্রতিষ্ঠার কাজও শুরু হয়েছে। অতি শিগগিরই দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে লেবুখালিতে একটি পদাতিক ডিভিশন প্রতিষ্ঠা করা হবে। দেশের সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যে ব্রিগেড পর্যায়ে স্পেশাল ফোর্স গঠনের বিষয়টি সরকারের সক্রিয় বিবেচনাধীন রয়েছে।

বাংলাদেশ নৌবাহিনীর আধুনিকায়নে সরকারের পদক্ষেপের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সরকারের দূর দৃষ্টিসম্পন্ন সিদ্ধান্ত এবং সক্রিয় ভূমিকায় আন্তর্জাতিক আদালতের রায়ে বিশাল সমুদ্র এলাকায় আমাদের ন্যায্য অধিকার প্রতিষ্ঠা হয়েছে। ‘ব্লু ইকোনমি’র মাধ্যমে সমুদ্রের এই সম্পদ আমাদের জাতির ভাগ্যোন্নয়নে অপরিসীম অবদান রাখতে সক্ষম। যে কারণেই আমাদের জাতীয় অর্থনৈতিক উন্নয়নে সমুদ্র এলাকার উন্নয়ন ও নিরাপত্তা বিধান করা অপরিহার্য।

এ বছর স্বাধীনতা পুরস্কারে ভূষিত নৌবাহিনীর সদস্যদের প্রধানমন্ত্রী অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, বর্তমান সরকারের আমলে নৌবাহিনীতে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক যুদ্ধ জাহাজ, মেরিটাইম হেলিকপ্টার এবং মেরিটাইম পেট্রোল এয়ারক্রাফট সংযুক্ত হয়েছে। এর ফলে বাংলাদেশ নৌবাহিনী একটি কার্যকরী ত্রি-মাত্রিক নৌবাহিনীতে পরিণত হয়েছে। নৌবাহিনী বহুল আকাঙ্খিত সাবমেরিনের ও শিগগিরই কমিশনিং হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

বিমান বাহিনীর আধুনিকায়ন সম্পর্কে তিনি বলেন, আমাদের সরকার বিমান বাহিনীকে একটি যুগোপযোগী ও দক্ষ বাহিনী হিসেবে গড়ে তোলার জন্য চতুর্থ প্রজন্মের অত্যাধুনিক মিগ-২৯ যুদ্ধবিমানসহ পরিবহন বিমান এবং উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন আকাশ প্রতিরক্ষা র‌্যাডার সংযোজন করে। সাম্প্রতিককালে আমাদের সরকার বিমান বাহিনীতে যুক্ত করেছে এফ-৭ বিজি যুদ্ধবিমানসহ হেলিকপ্টার ও অত্যাধুনিক আকাশ প্রতিরক্ষা ক্ষেপণাস্ত্র।

শেখ হাসিনা বলেন, ফোর্সেস গোল-২০৩০ এর আওতায় ইতোমধ্যেই বিমান বাহিনীতে সংযোজিত হয়েছে নতুন নতুন ইউনিট, বৃদ্ধি পেয়েছে জনবল। অনুমোদিত হয়েছে বঙ্গবন্ধু এ্যারোনটিক্যাল সেন্টার এবং পূর্ণাঙ্গ ঘাঁটি হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছে বঙ্গবন্ধু ও কক্সবাজার বিমান ঘাঁটি।

তিনি বলেন, বিমান বাহিনীর ভবিষ্যৎ প্রজন্মের উন্নততর এবং যুগোপযোগী প্রশিক্ষণ সুনিশ্চিত করার জন্য সংযোজিত হয়েছে অত্যাধুনিক প্রশিক্ষণ বিমান ও হেলিকপ্টার। এর পাশাপাশি অবকাঠামোগত উন্নয়নও চলমান রয়েছে। মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় মাত্র তিনটি বিমান নিয়ে যে বহিনীর জন্ম, সে বাহিনী আজ অত্যাধুনিক বিমান, আকাশ প্রতিরক্ষা র‌্যাডার, ক্ষেপণাস্ত্র, এমনকি বিমান ওভারহোলিং প্রযুক্তিতে সমৃদ্ধ।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের উন্নত চিকিৎসা সেবা প্রদানের লক্ষ্যে বিভিন্ন কম্বাইন্ড মিলিটারি হাসপাতালে আধুনিক চিকিৎসা যন্ত্রপাতি সন্নিবেশিত হয়েছে। সশস্ত্র বাহিনীর চিকিৎসা সেবা আধুনিকায়নের লক্ষ্যে চিকিৎসার বিভিন্ন নতুন শাখা ও সেন্টার স্থাপন করা হচ্ছে। এছাড়াও, প্রশিক্ষণ প্রদানের মাধ্যমে বিভিন্ন বিষয়ে বিশেষজ্ঞ জনশক্তি গড়ে তোলা হচ্ছে। ঢাকার সিএমএইচে দু’শত কোটি টাকা ব্যয়ে ক্যান্সার নিরাময় কেন্দ্র স্থাপনের সরকারি অনুমোদন প্রদান করা হয়েছে। ইতোমধ্যে স্বল্প পরিসরে এই কেন্দ্রের কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে।

তিনি বলেন, আপনারা জেনে খুশি হবেন যে, সশস্ত্র বাহিনী সদস্যদের আবাসন সমস্যা দূরীকরণে ইতোমধ্যে অফিসার, জেসিও ও অন্যান্য পদবির সৈনিকদের জন্য বাসস্থান, মেস ও ব্যারাক ইত্যাদি নির্মাণ করা হয়েছে। এছাড়াও নির্মাণাধীন উল্লেখযোগ্য স্থাপনার মধ্যে বাংলাদেশ মিলিটারি একাডেমিতে ক্যাডেটের জন্য বাসস্থান, নৌ ও বিমানবাহিনী একাডেমির জন্য আন্তর্জাতিক মানের ‘বঙ্গবন্ধু কমপ্লেক্স’ নির্মাণ করা হচ্ছে। বিভিন্ন সেনানিবাসে অফিসার, সৈনিক ও বেসামরিক ব্যক্তিবর্গের জন্য বহুতল বিশিষ্ট নতুন ব্যারাক ও পারিবারিক বাসস্থান নির্মাণ করা হচ্ছে।

দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের খানিকটা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী তার ভাষণে বলেন, আজকে আপনারা দেখেছেন- আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। আমরা এখন আমাদের প্রবৃদ্ধি ৭ ভাগে উন্নীত করেছি। রিজার্ভ ৩২ বিলিয়ন ইউএস মার্কিন ডলার। মাথাপিছু আয় ১৪শ’ ৬৬ মার্কিন ডলার। আমরা এখন যেই উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহণ করি বা যে বাজেট দেই তা আমরা ৫ গুণ বৃদ্ধি করেছি। আমাদের উন্নয়ন প্রকল্পের ৯০ ভাগ নিজস্ব অর্থায়নেই বাস্তবায়ন করি। পরনির্ভরশীলতা নয়, নিজের পায়ে দাঁড়িয়ে মাথা উঁচু করে চলবো, এটাই আমাদের লক্ষ্য। সেই লক্ষ্য নিয়েই আমরা কাজ করে যাচ্ছি। কাজেই বাংলাদেশ আজকে এগিয়ে যাচ্ছে। বিশ্বের দরবারে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের রোল মডেল।

শেখ হাসিনা বলেন, অনেকেই (বহিঃবিশ্বে) আমাকে প্রশ্ন করেন- আপনারা যে এত উন্নয়ন করছেন এর ম্যাজিকটা কি?

এর উত্তরে প্রধানমন্ত্রী নিজেই বলেন, আমার একটাই উত্তর। এখানে কোন ম্যাজিক নাই। এটা হচ্ছে আন্তরিকতা। আমরা আন্তরিকতার সাথে দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে জাতির প্রতি যে কর্তব্যবোধ, সেই কতর্ব্যবোধ থেকে কাজ করি বলেই আজকে বাংলাদেশ উন্নয়ন করতে পারছে এবং উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে বিশ্বব্যাপী মর্যাদা পেয়েছে।

শেখ হাসিনা বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে এবং তার হাতে গড়া সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করে মহান মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে এদেশের স্বাধীনতা এনেছে। আমরা যখনই সরকারে আসি আমাদের চিন্তা থাকে কিভাবে দেশকে উন্নত করব। সমৃদ্ধশালী এবং বিশ্বের দরবারে মুক্তিযুদ্ধের বিজয়ী জাতি হিসেবে মর্যাদার আসনে অধিষ্ঠিত করব।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, পরিশেষে, সশস্ত্র বাহিনীর সকল সদস্য ও তাদের পরিবারবর্গের সুখ, শান্তি ও কল্যাণ কামনা করি। আপনারা যেন দেশের উন্নয়ন ও অগ্রগতি সাধনে সশস্ত্র বাহিনী দিবসের আদর্শ ও অনুপ্রেরণায় উদ্বুদ্ধ হয়ে সবাই ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করে যেতে পারেন সেই কামনা করি।

শেখ হাসিনা বলেন, হেমন্তের এই বিকেলে উৎসবমুখর পরিবেশে আপনাদের সাথে সাক্ষাতের সুযোগ পেয়ে আমি অত্যন্ত আনন্দিত। আপনাদের উপস্থিতি আজকের এই মহতী অনুষ্ঠানকে প্রাণবন্ত ও মহিমান্বিত করেছে। এজন্য সশস্ত্র বাহিনীর পক্ষ থেকে আপনাদের সকলকে জানাই আন্তরিক ধন্যবাদ।

প্রধানমন্ত্রী বিদেশ থেকে আগত অতিথিদেরকেও তার শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জ্ঞাপন করেন এবং মুক্তিযুদ্ধে বিদেশী রাষ্ট্র ও তার নাগরিকদের অবদানের কথা পুনরায় শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করেন। বাসস

এ সম্পর্কিত আরও

Check Also

বাংলাদেশ থেকে শ্রমিক নিতে আগ্রহী কাতার, সংযুক্ত আরব আমিরাত

বাংলাদেশ থেকে শ্রমিক নিতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে কাতার ও সংযুক্ত আরব আমিরাত। শনিবার (১০ ডিসেম্বর) …

Mountain View

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *