Mountain View

খেলোয়াড় নির্বাচনের ক্ষমতা কার হাতে?

প্রকাশিতঃ নভেম্বর ২২, ২০১৬ at ৩:১৬ অপরাহ্ণ

paponক্রীড়া প্রতিবেদক, বিডি টুয়েন্টিফোর টাইমসঃ পাপন বড় না, নির্বাচকরা বড়? অবশ্যই বোর্ড সভাপতি বড়। তবে সেটা দল নির্বাচন প্রসঙ্গে নয়। কাকে কোন সিরিজের দলে রাখা হবে, এই প্রশ্নে নির্বাচকদের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত হওয়ার কথা। কিন্তু বাংলাদেশ জাতীয় দলের সাম্প্রতিক একটি ইস্যু বলছে, নির্বাচকরা হয়তো ‘পুতুল নেতা’। যা করার বোর্ড সভাপতিই করেন।

তিনটি ওয়ানডে, তিনটি টি-টোয়েন্টি ও দুটি টেস্ট ম্যাচ খেলতে আগামী মাসে নিউজিল্যান্ড সফর করবে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল। এই সিরিজের জন্য ২২ সদস্যের প্রাথমিক দলও ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। কিন্তু কিছুদিন আগে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন জানিয়েছেন, আরো কয়েকজন এই সিরিজের দলে যোগ হতে পারেন। ধারণা করা হচ্ছে, সেই আরো কয়েকজনের মধ্যে থাকতে পারেন মেহেদি মারুফ, নাসির হোসেন এবং শাহরিয়ার নাফিস।

নাসিরকে কেন আগে থেকে দলে নেয়া হয়নি, সেটা আরেকটা রহস্য। নজিরবিহীনভাবে নতুন করে কয়েকজনকে দলে নেয়ার প্রসঙ্গ কীভাবে উঠছে, সেই রহস্য তো রীতিমতো বিতর্ক উসকে দিচ্ছে। প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবদেনি নান্নুর কথা শুনলে চোখ কপালেই ওঠার কথা। তিনি বলছেন, এ বিষয়ে তারা (নির্বাচকরা) এখনো আলোচনা করেননি!

প্রশ্নটা এখানেই। প্রধান নির্বাচকরা যখন আলোচনা করেননি, তাহলে নতুন কয়েকজনকে দলে নেয়ার সিদ্ধান্ত কোথা থেকে এল।

‘এ বিষয়ে আমি আর বেশি কিছু বলতে পারি না। আশা করি ২৪ নভেম্বর মিডিয়াকে বিষয়টি জানাতে পারবো।’ গতকাল রাতে দেশের একটি ইংরেজি দৈনিককে বলেন নান্নু।

নতুন কাউকে দলে অন্তর্ভুক্ত করার বিষয়টি ‘দোষে’র নয়। কিংবা নীতিমালারও কোনো ব্যত্যয় ঘটবে না। তবে এ বিষয়টি বিসিবির প্রশাসনিক অবস্থার ইঙ্গিত দিয়ে যায়। গুঞ্জন আছে, বিসিবিতে বেশ কয়েক বছর ধরে একক আধিপত্য চলছে। দল জিতছে বিধায় সেই আধিপত্য দিনদিন বেড়েই চলেছে।

গত বছর ভারতের প্রভাবশালী দৈনিক আনন্দবাজারের ক্রীড়া সাংবাদিক গৌতম ভট্টাচার্য তার একটি লেখায় এই বিষয়টি তুলে ধরেছিলেন। তাসকিন-আরাফাত সানি ইস্যুতে আইসিসির সঙ্গে বাংলাদেশের তখন ঝামেলা চলছিল। ঠিক সেই সময় গৌতম ভট্টাচার্য লেখেন, ‘বাংলাদেশের এখনকার বোর্ড, শাসকদের সম্পর্কে যা সব গল্প গাছা শুনি, তার অর্ধেকও যদি সত্যি হয় ঘোর উদ্বেগজনক। মাশরাফিরা এত দিন টানা ভাল খেলছিলেন বলে এরা সেই আলোয় আলোকিত হচ্ছিলেন। এখন তাসকিনের জন্য বিচার চাইতে যাওয়ার সময় এদের প্রকৃত মুরদ ধরা পড়ছে।’  – ঢাকা টাইমস

এ সম্পর্কিত আরও