ঢাকা : ৭ ডিসেম্বর, ২০১৬, বুধবার, ১০:৩৮ অপরাহ্ণ
সর্বশেষ
A huge collection of 3400+ free website templates JAR theme com WP themes and more at the biggest community-driven free web design site

সাক্ষাতের সময় চেয়ে এবার রাষ্ট্রপতিকে চিঠি বিএনপির

564রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সাক্ষাতের বিষয়ে তার সামরিক সচিবের কাছে টেলিফোন করে কোনো জবাব না পেয়ে এবার রাষ্ট্রপতি বরাবর আনুষ্ঠানিক চিঠি দিয়েছে বিএনপি।

বুধবার বিকেলে রাষ্ট্রপতির সামরিক সচিব বরাবর এই চিঠি পাঠানো হয়েছে বলে দলটির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

বিএনপি মহাসচিব স্বাক্ষরিত চিঠিটি নিয়ে বঙ্গভবনে যান দলের সহ-দফতর সম্পাদক মুনির হোসেন, বেলাল আহমেদ ও সহ-প্রচার সম্পাদক আসাদুল করিম শাহীন। বঙ্গভবনে চিঠি গ্রহণ করেন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর এক কর্মকর্তা। চিঠিতে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে বিএনপির একটি প্রতিনিধি দলের সাক্ষাতের সময় চাওয়া হয়েছে।

এর আগে দুপুরে বিএনপির নয়া পল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর জানান, দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ১৩ দফা প্রস্তাব পেশ করার জন্য তার একান্ত সচিব ২০ নভেম্বর রাষ্ট্রপতির সামরিক সচিবের কাছে টেলিফোনে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সাক্ষাতের অনুমতি চেয়েছিলেন। কিন্তু রাষ্ট্রপতির সামরিক সচিব এই বিষয়ে কিছু জানাননি।

ফখরুল বলেন, ‘ফলে আমরা নতুন করে লিখিতভাবে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সাক্ষাতের সময় চেয়ে চিঠি পঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

তিনি বলেন, ‘আমরা আজকের মধ্যেই (বুধবার) লিখিতভাবে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সাক্ষাতের সময় চেয়ে চিঠি দেব। আশা করছি, রাষ্ট্রের অভিভাবক হিসেবে রাষ্ট্রপতি আমাদের প্রতিনিধি দলকে সাক্ষাতের সময় দেবেন।’

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘মহামান্য রাষ্ট্রপতির সাক্ষাৎ চেয়ে তার সামরিক সচিবের সঙ্গে যোগাযোগ করেছিলেন খালেদা জিয়ার একান্ত সচিব এম বিএম আবদুস সাত্তার। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া একজন সাবেক প্রধানমন্ত্রী, সংসদের সাবেক বিরোধী দলীয় নেত্রী। জাতির প্রতি দায়িত্ববোধ থেকেই দেশের এই চলমান রাজনৈতিক সঙ্কট থেকে উত্তরণের জন্য দলের পক্ষ থেকে তিনি একটি সুচিন্তিত প্রস্তাব পেশ করেছেন এবং পরের দিনই টুইটারে তিনি জানিয়েছেন এই প্রস্তাব কোনও শর্ত আরোপ করা নয়। মহামান্য রাষ্ট্রপতি ও সরকার এই প্রস্তাবের ওপর রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে আলোচনা করে জাতীয় ঐক্যমতের ভিত্তিতে পরবর্তী নির্বাচন কমিশন গঠন করতে পারেন অথবা এর ওপর রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে আলোচনা করে আইন প্রণয়ন করা যেতে পারে।’

তিনি বলেন, ‘কোথাও বলা হয়নি যে, এই প্রস্তাবই গ্রহণ করতে হবে। বর্তমান পরিস্থিতি ও দেশের রাজনৈতিক সংস্কৃতির পরিপ্রেক্ষিতে এই প্রস্তাব প্রণয়ন করা হয়েছে। জাতির যে সঙ্কট সৃষ্টি হয়েছে তা থেকে উত্তরণের একমাত্র পথ হচ্ছে, আলোচনার মাধ্যমে জাতীয় ঐকমত্য। রাষ্ট্রপতি দেশের অভিভাবক। আমরা আশা করছি রাষ্ট্রপতি বিষয়টি দেখবেন।’

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, আবদুল মঈন খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুস সালাম, আবুল খায়ের ভুঁইয়া, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক লেফটেন্যান্ট কর্নেল (অব.) জয়নাল আবেদীন প্রমুখ।

এ সম্পর্কিত আরও

Check Also

‘আলাদা বিমান কেনার মতো বিলাসিতা করার সময় আসেনি’

রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর জন্য আলাদা এয়ারক্রাফট কেনা প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, নতুন এয়ারক্রাফটের কোনো …

Mountain View

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *