ঢাকা : ৮ ডিসেম্বর, ২০১৬, বৃহস্পতিবার, ১২:০০ অপরাহ্ণ
A huge collection of 3400+ free website templates JAR theme com WP themes and more at the biggest community-driven free web design site

কাস্ত্রোর মৃত্যুতে মায়ামিতে স্বাধীনতা উদযাপন

c8d46453046f029e31c9fbbbefac1c8ex600x400x46আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ‘কিউবা মুক্ত!, স্বাধীনতা ! স্বাধীনতা !’চারপাশের হুল্লোড়ে কান পাতা দায়৷ কেউ ড্রাম পিটছেন, কেউ বা ক্যান৷ কেউ আবার আনন্দের চোটে জোরে জোরে গাড়ির হর্ন বাজাচ্ছেন৷ শব্দের চোটে কান পাতা দায়৷ কীসের এত ফূর্তি? সমস্বর জবাব এল, ফিদেল কাস্ত্রোর মৃত্যুর৷ শুনলে অবাক হওয়াই স্বাভাবিক বটে৷

কারও মৃত্যুতে এমন উদযাপন হতে পারে , বিশেষ করে যিনি বিশ্বখ্যাত রাষ্ট্রনেতা ? উত্তর মিলল পাবলো অ্যারেনসিবিয়ার কাছ থেকে৷ ৬৭ বছরের শিক্ষক বললেন , ‘কারও মৃত্যুতে এতগুলো মানুষ উদযাপন করছেন , এটা সত্যিই খুব দুঃখজনক , কিন্ত্ত ওই মানুষটার তো জন্মানোই উচিত ছিল না৷ ’ এমনটাই মনে করেন হাজারো কিউবান-আমেরিকান৷ ১৯৫৯-এ কাস্ত্রো ক্ষমতায় আসার পর এরা দেশত্যাগী হয়েছিলেন৷ অধিকাংশই আশ্রয় নিয়েছিলেন

মায়ামিতে৷ কাস্ত্রো এদের কাছে স্বৈরাচারি , বিশ্বাসঘাতক ছাড়া আর কিছুই নন৷ ফিদেল কাস্ত্রোর মৃত্যুতে তাই এই মানুষগুলো খুব খুশি৷

শুক্রবার রাতেই কাস্ত্রোর মৃত্যু সংবাদ এখানে দাবানলের মতো ছড়িয়েছে৷ আনন্দের চোটে অনেকে রাত -পোশাকেই নেমে পড়েছেন রাস্তায়৷ মায়ামি -সংলগ্ন লিটিল হাভানা ও হায়ালিয়ার রাস্তাতেও মানুষের ঢল৷ কেউ শ্যাম্পেনের বোতল খুলছেন , কেউ আবার কিউবার জাতীয় সঙ্গীত গুনগুন করছেন৷ একসঙ্গে নাচ , কোলাকুলি , সোল্লাসে চিত্কার — বাদ নেই কিছুই৷ অনেককে আবার বলতে শোনা গেল , ‘এত দিন সময় লেগে গেল !’ ১৯৮০ -তে মায়ামিতে এসেছিলেন হারনানদেজ৷

বললেন , ‘আজ সকলে খুব খুশি৷ ওই লোকটা আর অন্তত কোনও ক্ষতি করতে পারবে না৷ এ বার ওর ভাইকেও ক্ষমতা ছাড়তে হবে৷ ’একটা পোস্টার দেখা গেল , ‘শয়তান , ফিদেল এ বার তোমার জিম্মায় !’ এত রাগ , কিন্ত্ত কেন ? এক কিউবান -আমেরিকান বললেন , ‘ভাবতে পারবেন না , ফিদেলের মৃত্যু আমাদের কাছে কী অর্থবহ ! গত ৫৫ বছর ধরে আমরা এই দিনটার অপেক্ষা করছি৷ অবশেষে আমরা মুক্ত৷ ওই লোকটার কারণে আমরা এত ভুগেছি , আমার দেশের সব মানুষ ওর জন্য কষ্টে থেকেছে৷ ’

ফিদেলের প্রায় পাঁচ শতকের শাসনকালে আমেরিকায় আর্থিক নিষেধাজ্ঞা কিউবার মানুষকে কম কষ্টে ফেলেনি৷ সেই সময় কিউবা ছেড়ে আমেরিকায় পাড়ি জমিয়েছিলেন হাজার হাজার মানুষ৷ গরিবি , অভাবের সঙ্গে লড়তে লড়তে ক্লান্ত হয়ে গিয়েছিলেন তাঁরা৷ তাঁদের কাছে ফিদেল একটা জলজ্যান্ত শয়তানের প্রতিরূপ ছাড়া আর কিছুই নয়৷ সেই ‘শয়তান ’ আজ আর নেই৷ আনন্দের জোয়ারে মায়ামিতে তারই উদ্যাপন৷ – সংবাদসংস্থা

এ সম্পর্কিত আরও

Check Also

যে কারণে জয়ললিতাকে দাহ করা হল না,দেওয়া হল কবর

আন্তর্জাতিক ডেস্ক- ভারতের তামিলনাড়ু রাজ্যের ছয়বারের মুখ্যমন্ত্রী জয়রাম জয়ললিতাকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় সমাহিত করা হয়েছে। মঙ্গলবার …

Mountain View

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *