Mountain View

‘নতুন প্রজন্মকে আধুনিক বাংলাদেশের নির্মাতা হিসেবে গড়ে তুলতে হবে’

প্রকাশিতঃ নভেম্বর ২৯, ২০১৬ at ৬:৩৪ অপরাহ্ণ

0ccf8b71888c0b001e2a62ccc7eaadecx624x405x37শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, নতুন প্রজন্মকে আধুনিক বাংলাদেশের নির্মাতা হিসেবে গড়ে তুলতে হবে।
তিনি বলেন, জ্ঞান চর্চা, গবেষণা, নতুন জ্ঞান অনুসন্ধান ও নতুন জ্ঞান সৃষ্টি করার মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকেই এ দায়িত্ব নিতে হবে।
মন্ত্রী আজ দুপুরে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গণে বিশ্ববিদ্যালয় দিবস ও শিক্ষা মেলা-২০১৬ উপলক্ষে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা বলেন।
শিক্ষামন্ত্রী বলেন, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় সুনামের দাবি রাখে। এ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার মান উর্ধ্বমূখী, তবে আরও উন্নয়নের জন্য নতুন জ্ঞান সৃষ্টিতে বিশ্ববিদ্যালয়ে গবেষণা বাড়াতে হবে। শিক্ষার্থীদের সৃজনশীল কর্মকান্ডে আরও বেশি উৎসাহ দিতে হবে।
তিনি বলেন, শিক্ষার্থীদের মাঝে প্রযুক্তিগত জ্ঞানের চর্চা বাড়াতে হবে এবং দেশের উন্নয়নে গবেষণাকে কাজে লাগাতে হবে। যাতে জ্ঞানচর্চার ক্ষেত্রে দেশ শুধু প্রযুক্তির আমদানিকারক হিসেবে নয় বরং প্রযুক্তির রপ্তানিকারক হতে পারে।
শিক্ষামন্ত্রী বলেন, শিক্ষার্থীদের নিজস্ব জ্ঞান, দৃষ্টিভঙ্গি ও গবেষণা তুলে ধরতে হবে এবং এগুলো বাস্তব জীবনে প্রয়োগ করতে হবে। খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় মডেল হিসেবে একটি গ্রামকে উন্নত করতে গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছে। মন্ত্রী বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রামউন্নয়ন প্রকল্পের সাফল্য কামনা করেন এবং এর অভিজ্ঞতা সারাদেশে ছড়িয়ে দেয়ার আহবান জানান।
তিনি শারীরিক ও মানসিক জ্ঞান বৃদ্ধির জন্য পড়াশোনার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক চর্চা বাড়ানোর পরামর্শ দেন।
বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ার লক্ষ্যে বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কাজ করে যাচ্ছেন উল্লেখ করে নাহিদ বলেন, ভিশন-২০২১ এর বাস্তবায়ন এবং ২০৪১ সালে দেশকে উন্নত দেশে পরিণত করতে হলে দরকার দক্ষ মানব সম্পদ। এজন্য শিক্ষকদের দায়িত্ব হলো শিক্ষার্থীদের ভাল মানুষ হিসেবে গড়ে তোলা।
অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন খুলনা বিশ্বাবদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড.মুহাম্মদ ফায়েকউজ্জামান। বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন খুলনা বিশ্বাবদ্যালয়ের ট্রেজারার খান আতিয়ার রহমান। অন্যান্যের মধ্যে জীববিজ্ঞান অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. নাজমুল আহসান ও ছাত্রবিষয়ক পরিচালক অনির্বান মোস্তফা বক্তৃতা করেন। এ সময় খুলনা-১ আসনের সংসদ সদস্য পঞ্চানন বিশ্বাস এবং খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মুহাম্মদ আলমগীরসহ বিশ্বদ্যিালয়ের শিক্ষক ও ছাত্রছাত্রীরা উপস্থিত ছিলেন।
অনুষ্ঠান শেষে শিক্ষামন্ত্রী খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাহিত্য প্রকাশনা পিলসুজের মোড়ক উম্মোচন করেন ও রাঙ্গামারী গ্রামকে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমীক্ষা কেন্দ্র হিসেবে ফলক উম্মোচন করেন। পরে তিনি বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলের উদ্বোধন করেন।

এ সম্পর্কিত আরও

Mountain View