Mountain View

দেবিদ্বার কলেজ গেইট থেকে চান্দিনা রোডের ফটক পর্যন্ত হকারের দখলে

প্রকাশিতঃ ডিসেম্বর ১, ২০১৬ at ৭:৩৪ অপরাহ্ণ

500x350_658a64c4b265945be1325974fb6b78e8_20_8_2দেবিদ্বার কলেজ গেইট থেকে চান্দিনা রোডের প্রথম ফটক পর্যন্ত বরাবরই থাকছে হকারদের দখলে। সম্প্রতি প্রশাসনের পরিচালিত অভিযানে ফুটপাতগুলো দখলমুক্ত করার পর অভিযান শেষ হতে না হতেই হকাররা আবার দুই তিন দিনের মধ্যে দখলে নেয়ার ঘটনা ঘটছে। যার কারনে ফুটপাত দিয়ে নির্বিঘ্নে চলাচল করতে পারছেন না পথচারীরা। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ফুটপাতগুলো স্থানীয় দলীয় নেতাদের দখলেই পরিচালিত হয়।

সম্প্রতি নিউ মার্কেট,পান বাজার,কাচাবাজারের ফুটপাতে অবস্থিত দোকানিদের সরাতে প্রায়সময় প্রদক্ষেপ গ্রহণ করেন। সময়ে সময়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযানও পরিচালনা করছেন। কিন্তু অভিযানের পর দেখা যায় পুনরায় হকাররা বহাল তবিয়তে। এতে প্রশাসন অভিযান পরবর্তী ফুটপাতে হকারদের বসা নিয়ে কোন পদক্ষেপ নিতে দেখা যায় না। ফলে পথচারীরা আবার শিকার হয় দুর্ভোগের।

পথচারীদের ফুটপাত ছেড়ে রাস্তায় চলাচল করতে বাদ্য হচ্ছে।কয়েকদিন আগে কলেজ রোডস্থ সকল ফুটপাত কয়েক দফায় উচ্ছেদ করা হলেও তাদের হাত থেকে ফুটপাতমুক্ত করা সম্ভব হয়নি। দেবিদ্বারে কলেজ রোড সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত মূল রাস্তার প্রায় অর্ধেক জুড়ে থাকে হকারদের আধিপত্য। যেখানে পথচারিদের নির্বিঘ্নে পথ চলার চিন্তা করাই বৃথা। দেবিদ্বারে এসব ফুটপাতে অবৈধ দখলের সাথে যোগ হয়েছে মিটারহীন বিদুৎ সংযোগ।
প্রশাসনের চোখের সামনেই চলছে হকারদের এমনসব অবৈধ ফুটপাত দখল ও অবৈধ বিদুৎ সংযোগের প্রকাশ্য মহড়া।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক হকার ব্যাবসায়িক বলেন স্থানীয় প্রভাবশালীদের টাকা দিয়ে হকাররা ব্যবসা করে জীবনধারণ করছেন। তাদের পুনর্বাসন করা হলে ফুটপাত আর দখল হবে না। তারা চান চাঁদাবাজির শিকার না হয়ে পৌর প্রশাসককে বৈধভাবে রাজস্ব দিয়ে ব্যবসা করতে।যেমন পুরাতন সরকারী শিশুসদন,মরা নদী বরাট করে প্রশাসক কর্তৃক হকারদের জন্য ছোট ছোট দোকানের ব্যবস্থা করলে বিপুল সংখ্যক বেকার যুবকের কর্মসংস্থানের পাশাপাশি সরকারের মোটা অংকের রাজস্ব আয় করা যাবে। যানজট কমাতে ও পথচারীদের নির্বিঘ্নে চলাচলের সুবিধার্থে ফুটপাতের এক ইঞ্চি রাস্তাও অবৈধভাবে দখল হতে দেয়া হবে না।প্রশাসন ও প্রশাসকের এমন কথার কতটুকু যুক্তিকতা আছে তা উপরের ছবি দেখলেই বুঝা যায়।

এ সম্পর্কিত আরও

Mountain View