ঢাকা : ২৩ জুলাই, ২০১৭, রবিবার, ২:৫৮ অপরাহ্ণ
A huge collection of 3400+ free website templates JAR theme com WP themes and more at the biggest community-driven free web design site

৬টি বিলাসবহুল কমিউনিটি সেন্টার হচ্ছে রাজধানীতে ব্যয় ২৪৩ কোটি টাকা

cumunity

বিয়ে, ওয়ার্ড পর্যায়ে সমাজকল্যাণ, সামাজিক যোগাযোগ, বিনোদনমূলক, সাংস্কৃতিক ও ধর্মীয় অনুষ্ঠানের জন্য সাশ্রয়ী মূল্যে ভাড়া দিতে নগরীতে নির্মিত হবে ছয়টি অত্যাধুনিক কমিউনিটি সেন্টার। সমাজ উন্নয়ন ও সামাজিক কর্মকাণ্ডের যোগসূত্র হিসেবে তৈরি করা এবং এলাকার জীবনযাত্রার মান ও আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের লক্ষ্যেই এগুলো নির্মাণ করা হবে।

ঢাকা অফিসার্স ক্লাব অথবা সেনাকুঞ্জের আদলে কমিউনিটি সেন্টারগুলো নির্মাণ ও পরিচালনা করা হবে। এর ফলে আয় করার পাশাপাশি সর্বোচ্চ নাগরিক সুবিধা নিশ্চিত করা যাবে। ২৪৩ কোটি ২৮ লাখ টাকা ব্যয় করে সেগুলো নির্মাণ করতে যাচ্ছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি)।

দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের বাসাবো, হাজারিবাগ, ৩৪ নম্বর ওয়ার্ড ও সূত্রাপুর এলাকায় একটি করে কমিউনিটি সেন্টার নির্মাণ হবে। তবে লালবাগে হবে দু’টি কমিউনিটি সেন্টার। ছয় থেকে ১৫তলা বিশিষ্ট কমিউনিটি সেন্টারগুলোতে থাকবে- থিয়েটার হল, অডিটোরিয়াম, লাইব্রেরি, কনফারেন্স রুম, সুইমিং পুল, জিমনেশিয়াম, ইনডোর গেমস্‌, ডে-কেয়ার সেন্টার ও বিনোদন কেন্দ্র। থিয়েটার হল ও অডিটোরিয়ামে থাকবে উন্নত সাউন্ড সিস্টেম, লাইটিং, মাল্টিমিডিয়াম, মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টর, স্টেজ ও শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ রুম।

ডিএসসিসি সূত্র জানায়, বাসাবো এলাকায় তিন হাজার ১১৭ বর্গফুট ফ্লোর বিশিষ্ট ১৫তলা কমউনিটি সেন্টার নির্মাণ করতে ব্যয় করা হবে ৩৬ কোটি টাকা।

এছাড়া হাজারিবাগে দুই হাজার ২৩২ বর্গফুট ফ্লোর বিশিষ্ট ১৫তলা কমিউনিটি সেন্টার নির্মাণে ২৭ কোটি টাকা, লালবাগে একই আয়তন বিশিষ্ট দু’টি কমিউনিটি সেন্টার নির্মাণে ৫০ কোটি টাকা, ৩৪ নম্বর ওয়ার্ডে ১২তলা কমিউনিটি সেন্টার নির্মাণে ১৫ কোটি ৪৮ লাখ টাকা এবং সূত্রাপুরে সেনা ঢাকা অফিসার্স ক্লাবের আদলে ছয়তলা কমিউনিটি সেন্টার নির্মাণে ৩৭ কোটি টাকা ব্যয় করা হবে।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা খান মোহাম্মদ বলেন, ‘নগরবাসী কমিউনিটি সেন্টার বলতেই বেসরকারি প্রতিষ্ঠানকে বোঝেন। এবার আমরা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে অত্যাধুনিক ছয়টি কমিউনিটি সেন্টার নির্মাণ করবো, যেন সব ধরনের উন্নত সেবা দেওয়া যায়। আমাদের বিশ্বাস, যে ব্যয় করছি, তাতে উন্নতমানের কমিউনিটি সেন্টার নির্মাণ করা সম্ভব। আমরা সাশ্রয়ী খরচে কমিউনিটি সেন্টারে উন্নত সেবা দিতে চাই’।

ছয়টি কমিউনিটি সেন্টারের মধ্যে পাঁচটির জন্য ৫০ হাজার গ্যালন এবং একটির জন্য এক লাখ গ্যালন ক্ষমতাসম্পন্ন ভূগর্ভস্থ জলাধার নির্মাণও করা হবে। ২০১৭ সালের জুলাই থেকে ২০১৯ সালের জুন মেয়াদে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হবে।

এ সম্পর্কিত আরও

আপনার-মন্তব্য