Mountain View

নাসিরের পর এবার মুমিনুল-রিয়াদ

প্রকাশিতঃ আগস্ট ১৭, ২০১৭ at ১১:০৩ অপরাহ্ণ

জুবায়ের আহমেদ:২০১৬ সালের টি২০ বিশ্বকাপে কোচের আক্রোশের শিকার হন নাসির হোসেন। পরের ইতিহাস সবার জানা। বিগত ২ বছরে যোগ্যতা থাকা স্বত্বেও জাতীয় দলে ব্রাত নাসির হোসাইন। খেলানো হয়নি নিয়মিত, মাঝে মধ্যে ওয়ানডেতে নিলেও টি২০ ও টেস্টে ছিলো নাসির।

চলতি বছরের নিজেদের শততম টেস্টে সবাইকে অবাক করে দিয়ে নেওয়া হয়নি বাংলাদেশের একমাত্র টেস্ট স্পেশালিষ্ট মুমিনুল হককে এবং অভিজ্ঞ মাহমুদুল্লাহ রিয়াদকে। তখনো আঁচ করা যায়নি, কি ঘটতে যাচ্ছে। অবশেষে অস্ট্রেলিয়া সিরিজকে সামনে রেখে নির্বাচক ও কোচের কথাবার্তায় মুমিনুল-রিয়াদ না থাকার বার্তা পাওয়া গেছে। সম্ভবত অজিদের সাথে টেস্টে ফিরবেন নাসির, কিন্তু নাসিরকে ফিরিয়ে যাদের বাদ দেওয়া হচ্ছে, তা স্পষ্ট ভাবে তাদের সাথে অবিচারের সামিল।

মুমিনুলের বিষয়ে অফস্পিন খেলতে না পারার ঠুনকো অভিযোগ এনেছেন কোচ। কিন্তু ভেতরের খবর হলো মিমিকে কোচের পছন্দ নয়। রিয়াদ সর্বশেষ ওয়ানডে টুর্নামেন্ট তথা আইসিসি চ্যাম্পিয়ন ট্রফিতেও দূর্দান্ত সেঞ্চুরী করে ফর্মে ফিরেছেন, তাই অস্ট্রেলিয়া সিরিজে রিয়াদ থাকবেন, এমনটা নিশ্চিত ভাবনায় থাকলেও, রিয়াদ না থাকার সম্ভাবনাই বেশি।

বাংলাদেশ এখনো উঠতি দল মাত্র। সাফল্য পেতে শুরু করা একটি দলে অভিজ্ঞতাকে ছুড়ে ফেলার পরিণতি কখনো ভালো হয় না। মিমিকে বসিয়ে দল ঘোষণা করার মতো বিলাসিতা করার সময় এখনো আসেনি বাংলাদেশ ক্রিকেটে। আর অভিজ্ঞ রিয়াদের কোন বিকল্প হতে পারে না।

স্পষ্ট ভাবেই বুঝা যাচ্ছে অফফর্ম নয়, অপছন্দের বলি হচ্ছেন দুজন। তাদের বদলে যাদের সুযোগ দেওয়া হবে, তারা টি২০ ওয়ানডেতে ভালো হলেও টেস্টে কখনোই মিমি-রিয়াদের চেয়ে যোগ্য নয়।

টেস্টে একটি উঠতি দলে এমন হঠকারি সিদ্ধান্ত, পরিণতি কখনোই শুভ হবে না, হতে পারে না। কেউ কেউ সভাপতির, কেউ কেউ কোচের অপছন্দের কারনে দলে সুযোগ পাবে না, এমনটা কখনোই কাম্য নয়। এই অবস্থা চলতে থাকলে বাংলাদেশ ক্রিকেট সময়ে অভিজ্ঞ হলেও পারফরম্যান্সে কখনোই অভিজ্ঞ হবে না। আর অভিজ্ঞতাবিহীন ক্রিকেট, তলাবিহীন ঝুড়ির মতো। বোর্ড ও ক্রিকেট সংশ্লিষ্ট সবাইকে বিষয়টি অবশ্যই ভাবতে হবে। ক্রিকেটের মঙ্গলের জন্যই ভাবা দরকার।

জুবায়ের আহমেদ
ক্রীড়া লেখক

এ সম্পর্কিত আরও

Mountain View