ঢাকা : ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৭, মঙ্গলবার, ৮:৩১ অপরাহ্ণ
A huge collection of 3400+ free website templates JAR theme com WP themes and more at the biggest community-driven free web design site
প্রচ্ছদ > সারাদেশ > নির্যাতিত মায়ের আজীবন ভরণপোষণের দায়িত্ব নিলেন ডিসি

নির্যাতিত মায়ের আজীবন ভরণপোষণের দায়িত্ব নিলেন ডিসি

জন্মধাত্রী মাকে যখন এক মুঠো ভাতের জন্য নিজের ছেলের প্রহারে রক্তাক্ত হতে হয়, শুনতে হয় বৌমার নানা বঞ্চনা। ঠিক সে মুহুর্তে ৭০ কি:মি: পথ পাড়ি দিয়ে নির্যাতিত মাকে উদ্ধার করে সদরে এনে উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থা করে মায়ের আজীবন ভরণপোষনের দায়িত্ব নিলেন ঠাকুরগাঁও জেলা প্রশাসক আব্দুল আওয়াল।

সন্তান ও বউমার নির্যাতনে রক্তাক্ত হওয়া শতবর্ষী বৃদ্ধা তাসলেমা খাতুন (৯৮) কে যখন ঠাকুরগাঁওয়ের জেলা প্রশাসক আব্দুল আওয়াল কোলে করে অ্যাম্বুলেন্সে তুলছিলেন সেই দৃশ্য দেখে এলাকাবাসী নীরব হয়ে তাকিয়ে ছিলেন। বুধবার (১৬ আগস্ট) সকাল ৭ টায় জেলা প্রশাসকের উপস্থিতি দেখে হরিপুর উপজেলার ডাঙ্গীপাড়া ইউনিয়নের ডাঙ্গীপাড়া গ্রামের মানুষ অবাক হয়েছেন।

এসময় এলাকার অনেক নারী একে অপরকে বলেন, যে কাজ করা দরকার নিজের ছেলের সেটা করলেন বড় স্যার (জেলা প্রশাসক)। এর আগে গতকাল মঙ্গলবার দুপুরের কাছাকাছি সময়ে শতবর্ষী বৃদ্ধা তাসলেমা খাতুন বউমার কাছে (ছেলের স্ত্রী) খাবার জন্য ভাত চাইলে আকস্মিক ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন ৬০ বছর বয়সী ছেলে বদরউদ্দিন ও তার স্ত্রী। এক পর্যায়ে তাদের মারধরের শিকার হন শতবর্ষী ওই বৃদ্ধা। এসময় বাম চোখের নিচে গুরুতর জখম হন তিনি।

এরপর বেলা ১২টায় বৃদ্ধা তাসলেমা খাতুনকে জেলা প্রশাসক ঠাকুরগাঁও সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন এবং তার উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থা করে আজীবন ভরণপোষনের দায়িত্ব নেন। ডাঙ্গীপাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জানান, রাতে সংবাদকর্মীদের মাধ্যমে বিষয়টি জানতে পেরেছি। সকালে এসে ডিসি স্যার ও দুইজন সাংবাদিক বৃদ্ধ মা কে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঠাকুরগাঁওয়ে নিয়ে যান।

জরুরি বিভাগের ডাক্তার পার্থ সারথী দাস জানান, বৃদ্ধা মায়ের চোখের ক্ষত খুবই গুরুতর। তাকে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। তার সকল চিকিৎসা ঠাকুরগাঁও সদর হাসপাতাল থেকে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন সিভিল সার্জন ডা. আবু মোহাম্মদ খায়রুল কবির। ঠাকুরগাঁও জেলা প্রশাসক আব্দুল আওয়াল জানান, রাতে যখন সংবাদকর্মীর মাধ্যমে জানতে পারলাম এক বৃদ্ধ মা তার সন্তানের হাতে আঘাত পেয়ে হাসপাতালে ভর্তি। তখন বিষয়টি আমাকে খুবই ব্যাথিত করে। তাই সকাল ৭ টায় দুইজন সংবাদকর্মী নিয়ে বৃদ্ধা মায়ের খোজে হরিপুরে যাই। পরে স্থানীয় প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে বৃদ্ধা মা কে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়।-ফরিদুল ইসলাম রঞ্জু

এ সম্পর্কিত আরও

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *