Mountain View

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ে ৪৬০০ নিয়োগ

প্রকাশিতঃ আগস্ট ১৯, ২০১৭ at ৬:৫৩ অপরাহ্ণ

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের নিয়ন্ত্রণাধীন নার্সিং ও মিডওয়াইফারি অধিদপ্তরে সিনিয়র স্টাফ নার্স পদে ৪০০০ ও মিডওয়াইফ পদে ৬০০ জন নিয়োগ দেওয়া হবে। আবেদনের শেষ তারিখ ৩০ আগস্ট। বিস্তারিত জানাচ্ছেন রায়হান রহমান

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের নিয়ন্ত্রণাধীন নার্সিং ও মিডওয়াইফারি অধিদপ্তরে সিনিয়র স্টাফ নার্স ও মিডওয়াইফ পদে চার হাজার ৬০০ লোক চেয়ে বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে বাংলাদেশ সরকারি কর্মকমিশন। আবেদন করতে হবে অনলাইনে। সিনিয়র স্টাফ নার্স (অস্থায়ী) পদে ৪০০০ জন এবং মিডওয়াইফ (অস্থায়ী) পদে ৬০০ জন লোক নিয়োগ দেওয়া হবে। নিয়োগ দেওয়া হবে বাংলাদেশ সরকারি কর্মকমিশন (পিএসসি) সচিবালয়ের মাধ্যমে। বিজ্ঞপ্তিটি অনলাইনে পাওয়া যাবে পিএসসির ওয়েবসাইট (bpsc.portal.gov.bd) ও http://bit.ly/2vlIhd লিংকে।

আবেদনের যোগ্যতা

সিনিয়র স্টাফ নার্স পদে আবেদনের জন্য কোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে নার্সিংয়ে স্নাতক ডিগ্রি অথবা ডিপ্লোমা-ইন-নার্সিং বা ডিপ্লোমা-ইন-সায়েন্স অ্যান্ড মিডওয়াইফারি সার্টিফিকেটধারী হতে হবে। মিডওয়াইফ পদে আবেদনের জন্য প্রার্থীকে কোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মিডওয়াইফারি বিষয়ে স্নাতক ডিগ্রি বা কোনো স্বীকৃত প্রতিষ্ঠান থেকে মিডওয়াইফারি সার্টিফিকেটধারী হতে হবে। উভয় পদের ক্ষেত্রে থাকতে হবে বাংলাদেশ নার্সিং কাউন্সিলের নিবন্ধন। ১ আগস্ট ২০১৭ তারিখে সিনিয়র স্টাফ নার্স পদে সর্বোচ্চ বয়সসীমা ৩৬ বছর এবং মিডওয়াইফ পদে বয়সসীমা ৩০ বছর। তবে মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের জন্য বয়সসীমা সর্বোচ্চ ৩২ বছর। প্রার্থীকে বাংলাদেশের নাগরিক হতে হবে।

কোনো বিদেশি নাগরিককে বিয়ে করলে বা বিয়ের জন্য প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হলে সরকারের অনুমতি নিয়ে আবেদন করতে হবে এবং বিপিএসসি ফরম ৩-এর সঙ্গে লিখিত পরীক্ষার সময় তা জমা দিতে হবে।আবেদনের নিয়ম

আবেদন করতে হবে অনলাইনে। এরই মধ্যে শুরু হয়েছে আবেদন প্রক্রিয়া। শেষ সময় ৩০ আগস্ট সন্ধ্যা ৬টা। বাংলাদেশ সরকারি কর্মকমিশনের ওয়েবসাইট (www.bpsc.gov.bd) বা টেলিটকের ওয়েবসাইটে (bpsc.teletalk.com.bd) ঢুকে নন- ক্যাডার অপশন নির্বাচন করে নির্ধারিত আবেদন ফরম ৫-এর নির্দেশনা মেনে আবেদন করতে হবে। অনলাইনে আবেদন করার সময় নির্ধারিত স্থানে প্রার্থীর ৩০০ বাই ৩০০ পিক্সেলের ছবি ও ৩০০ বাই ৮০ পিক্সেল সাইজের স্বাক্ষর স্ক্যান করে আপলোড করতে হবে। ছবি ও স্বাক্ষরের ফাইল সাইজ ১০০ কিলোবাইটের বেশি হওয়া যাবে না।  আবেদন ফরম পূরণ শেষে সাবমিট করার আগে ভুলভ্রান্তি আছে কি না ভালো করে দেখে নিতে হবে। আবেদন চূড়ান্ত দাখিল করার পর Applicant’s Copy-এর প্রিন্ট কপি সংরক্ষণ করতে হবে।

পরবর্তী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে ইউজার আইডি ব্যবহার করে এসএমএসের মাধ্যমে পরীক্ষার ফি বাবদ ৫০০ টাকা জমা দিতে হবে। পরীক্ষার ফি পরিশোধের জন্য টেলিটক প্রিপেইড নম্বরের মেসেজ অপশনে গিয়ে BPS User ID লিখে পাঠাতে হবে 16222 নম্বরে। পরে ফিরতি মেসেজের নির্দেশনা অনুসারে তথ্য দেওয়ার পর পরীক্ষার ফি পরিশোধ হয়ে যাবে। পরে ইউজার আইডি ও পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে প্রবেশপত্র ডাউনলোড করা যাবে।

যা যা লাগবে

লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীদের মৌখিক পরীক্ষা দেওয়ার আগে বিপিএসসি ফরম-৩ পূরণ করে জমা দিতে হবে। সঙ্গে শিক্ষাগত যোগ্যতার সব সনদ, মার্কশিটের সত্যায়িত ফটোকপি জমা দিতে হবে। তবে সাক্ষাত্কারের সময় মূল সনদ দাখিল করতে হবে। বাংলাদেশ নার্সিং কাউন্সিল থেকে পাওয়া রেজিস্ট্রেশন সনদের সত্যায়িত কপি জমা দিতে হবে। ‘ও’ এবং ‘এ’ লেভেল ডিগ্রিধারীদের জন্য জন্ম তারিখসংবলিত কাগজপত্র দাখিল করতে হবে। বিদেশি ডিগ্রিধারী হলে লাগবে ইকুইভ্যালেন্স সনদ। চাকরি থেকে ইস্তফাদানকারী অথবা অপসারিত ব্যক্তিদের জন্য ইস্তফাপত্র বা অপসারণপত্রের সত্যায়িত কপি দাখিল করতে হবে। চাকরিরত অবস্থায় থাকলে ছাড়পত্রের সত্যায়িত কপি জমা দিতে হবে। কোটার বেলায় সংশ্লিষ্ট সনদের সত্যায়িত কপি দিতে হবে। স্থায়ী ঠিকানা পরিবর্তিত হলে চেয়ারম্যানের স্বাক্ষরিত সনদ জমা দিতে হবে। ফরম ৫-এ যেভাবে পূরণ করা হয়েছে ফরম ৩-এ ঠিক সেভাবেই পূরণ করতে হবে।

নিয়োগ পদ্ধতি

সরকারের প্রচলিত নিয়ম মেনে নিয়োগ দেওয়া হবে। লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণরাই নিয়োগ পাবে। তবে নিয়োগ পেতে গেলে আবেদনকৃত পদের সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে প্রার্থীর যথেষ্ট জ্ঞান রাখতে হবে। বিপিএসসি ফরম ৫-এ পূরণ করার সময় পরীক্ষার কেন্দ্রের নাম ‘ঢাকা’ উল্লেখ করতে হবে। লিখিত পরীক্ষা হবে ঢাকায়।

পরীক্ষার ধরন

সরকারি কর্মকমিশনের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক (নন-ক্যাডার) শেখ শাখাওয়াত্ হোসেন জানান, লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষা হবে। লিখিত পরীক্ষার জন্য থাকছে ১০০ নম্বর। পরীক্ষা হবে এমসিকিউ পদ্ধতিতে। লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের দিতে হবে মৌখিক পরীক্ষা। মৌখিক পরীক্ষায় নম্বর থাকছে ১০০। পাস নম্বর ৪০। লিখিত পরীক্ষায় প্রশ্ন আসবে বাংলা, ইংরেজি, সাধারণ জ্ঞান, গণিত, দৈনন্দিন বিজ্ঞান ও টেকনিক্যাল বিষয়ে। উভয় পদে লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের ১০০ নম্বরের মৌখিক পরীক্ষায় অংশ নিতে হবে। মৌখিক পরীক্ষায়ও পাস নম্বর ৪০।

পরীক্ষার প্রস্তুতি

১০০ নম্বরের লিখিত পরীক্ষায় ১০০টি প্রশ্ন থাকবে। প্রতিটি সঠিক উত্তরের জন্য পাওয়া যাবে ১ নম্বর। ভুল উত্তরের জন্য কোনো নম্বর কাটা যাবে না বলে জানান পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক (নন-ক্যাডার) শেখ শাখাওয়াত্ হোসেন। তিনি আরো জানান, প্রত্যেক প্রশ্নের সঙ্গে সম্ভাব্য উত্তর হিসেবে চারটি উত্তর থাকবে।   বাংলায় ১৫, ইংরেজিতে ১৫, সাধারণ জ্ঞান, গণিত ও দৈনন্দিন বিজ্ঞানে ২০ এবং সংশ্লিষ্ট পদের জন্য বরাদ্দ থাকবে ৫০ নম্বর। পরীক্ষার সময় এক ঘণ্টা। বিগত বছরের প্রশ্ন বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, প্রত্যেক পদের জন্য এমসিকিউ পরীক্ষা হয় আলাদা প্রশ্নপত্রে।

লিখিত পরীক্ষায় বাংলা ব্যাকরণ অংশ থেকে সন্ধিবিচ্ছেদ, সমাস, প্রত্যয়, কারক বিভক্তি, ভুল সংশোধন ও শুদ্ধকরণ, এককথায় প্রকাশ,  নত্ব-বিধান, ষত্ব-বিধান, সমার্থক ও বিপরীতার্থক শব্দ, বাগধারা; সাহিত্য অংশে বিভিন্ন গল্প, কবিতা বা বইয়ের লেখকের নাম ও জীবনী থেকে বেশি প্রশ্ন আসে। ইংরেজিতে Sentence, Narration, Voice Change, Correct From of Verbs, Suffix-Prefix, Translation, Pronunciation, Synonym-Antonym, Transformation of Sentence, Appropriate Word, Appropriate Preposition, Idioms and Phrases থেকে সাধারণত প্রশ্ন আসে।

গণিতে সাধারণত শতকরা, সুদকষা, ঐকিক নিয়ম, অনুপাত, সমানুপাত, লসাগু-গসাগু, লাভ-ক্ষতি, ভগ্নাংশ, উত্পাদক, সূচক, লগারিদম, বীজগণিতীয় সূত্র থেকে প্রশ্ন আসতে পারে। জ্যামিতি অংশ থেকে ত্রিভুজ, চতুর্ভজ, বৃত্ত, রেখা, কোণ, ক্ষেত্রফল ইত্যাদি বিষয়ে প্রশ্ন আসতে পারে। সাধারণ জ্ঞান থেকে প্রশ্ন থাকে বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক বিষয়াবলি থেকে। বাংলাদেশ বিষয়ে ভূ-প্রকৃতি, জলবায়ু, ইতিহাস ও সভ্যতা, সংস্কৃতি ও ভাষা আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধ, বাংলাদেশ রাষ্ট্রব্যবস্থা ও সাম্প্রতি বিষয় এবং আন্তর্জাতিক বিষয়াবলি থেকে ঘটনা, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি, পরিবেশ, রোগব্যাধি ও চিকিত্সাবিজ্ঞান থেকে প্রশ্ন থাকতে পারে।
পদসংশ্লিষ্ট কিছু প্রশ্ন থাকে। যেমন—সিনিয়র স্টাফ নার্স পদের জন্য সংশ্লিষ্ট পদের টেকনিক্যাল বিষয় নিয়ে প্রশ্ন আসতে পারে। আবার মিডওয়াইফ পদের জন্য সংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে টেকনিক্যাল প্রশ্ন আসতে পারে। সংশ্লিষ্ট পদের আবেদনের যোগ্যতা অনুযায়ী প্রশ্ন প্রণয়ন করা হবে বলে জানান সংশ্লিষ্টরা।

বেতন ও সুযোগ-সুবিধা

সিনিয়র স্টাফ নার্স ও মিডওয়াইফ পদে নিয়োগের পর জাতীয় বেতন স্কেল দশম গ্রেড অনুসারে ১৬০০০-৩৮৬৪০ টাকা বেতন পাবেন। পাওয়া যাবে অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা।

যোগাযোগ

যেকোনো তথ্য পাওয়ার জন্য www.bpsc.gov.bd ওয়েবসাইট দেখতে হবে। সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত ৫৫০০৬৬৫৭ ও ৫৫০০৬৮৩৪ নম্বরে ফোনে যোগাযোগ করা যাবে।

কৃতজ্ঞতা : কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল। ছবি : তারেক আজিজ নিশক

এ সম্পর্কিত আরও

Mountain View