Mountain View

খাদ্য বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিতে ক্যারিয়ার ফুড ইন্ডাস্ট্রি গুলোতে চাকরি

প্রকাশিতঃ আগস্ট ২২, ২০১৭ at ৫:৩২ অপরাহ্ণ

মোঃ লিটন সরকার:বিশ্বায়নের এ যুগে খাদ্যের মাঝেও পরিবর্তনের হাওয়া লেগেছে। নিত্য প্রয়োজনীয় চাল-ডাল-মসলা থেকে শুরু করে প্রস্তুতকৃত কনফেকশনারী-বেভারেজ সর্বত্রই আধুনিক খাদ্য প্রযুক্তির জয়জয়কার। চারিদিকে নগরায়নের সাথে সাথে সময় ও শ্রম বাচাতে মানুষ ঝুঁকছে কমার্শিয়াল ফুডের দিকে। অপরদিকে খাদ্য প্রস্তুতকরণ ও সংরক্ষণের পাশাপাশি খাদ্য নিরাপত্ত্বাও পেয়েছে সমান গুরুত্ত্ব।

দেশে আজ সহশ্রাধিক ন্যাশনাল, মাল্টিন্যাশনাল বা ইন্টারন্যাশনাল ফুড ইন্ডাস্ট্রিজ রয়েছে। এসব কোম্পানীর একাধিক প্লান্ট রয়েছে। রয়েছে অনেক শাখা যেমন বেভারেজ, কনফেকশনারী, ডেইরী, ¯পাইস, বেকারী, ফ্রোজেন ফুড ইত্যাদি।

গবেষক ও ফুড ইন্ডাস্ট্রি এক্সপার্ট মোঃ শাহাবুদ্দীন আহমেদ (শাওন) জানান- বিদেশী ফুড ইনডাস্ট্রিজের পাশাপাশি এখন দেশীয় কারখানাগুলোর অনেকের রয়েছে আন্তর্জাতিক মান তথা আইএসও, হ্যাচাপসহ অন্যান্য সার্টিফিকেট।
দেশের শীর্ষস্থানীয় অধিকাংশ কারখানা শতাধিক দেশে খাদ্য পণ্য রপ্তানী করে দেশের জিডিপিতে প্রশংসানীয় ভূমিকা রাখছে।আন্তর্জাতিক মান রক্ষার্থে এ সকল ইন্ডাস্ট্রিতে দিন দিন কদর বেড়েই চলেছে খাদ্য বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিতে অনার্স বা মাস্টার্স ডিগ্রীধারীদের।

বিদেশী প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি এখন দেশীয় কোম্পানীগুলোও আকর্ষনীয় বেতন-ভাতা দিচ্ছে। সাথে আছে ফেস্টভেল বোনাস, প্রফিট বোনাসসহ অন্যান্য সুযোগ সুবিধা।
তাইতো সময়োপযোগি “খাদ্য বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ে বিএসসি (অনার্স)-এ অধ্যায়নের সুযোগ দিয়ে সিরাজগঞ্জে শুরু হতে যাচ্ছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীভূক্ত “হেনরী ইনিস্টিটিউট অব বায়োসায়েন্স এন্ড টেকনোলজীর” অগ্রযাত্রা। বিএসসি অনার্স সার্টিফিকেট প্রদান করবে স্বয়ং রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় উক্ত বিষয়সমূহ সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের একই সিলেবাস-কারিকুলামে পরিচালিত দেশের নামকরা বিশ্ববিদ্যালয় ও বিদেশে উচ্চতর ডিগ্রীধারী অত্যন্ত মানসম্মত এক ঝাক শিক্ষক-গবেষক নিয়ে যাত্রা শুরু হতে যাচ্ছে। প্রায় প্রতিটা বিভাগে একাধিক পিএইচডি গবেষক রয়েছেন। বিজ্ঞান বিভাগ থেকে ২০১৬/২০১৭ সালে এইচ এস সি ঊত্তীর্ণ শিক্ষার্থীবৃন্দ,
কৃষিতে ডিপ্লোমা সম্পন্নকারী বা
প্যারামেডিক্যাল ডিগ্রী সম্পন্নকারীরা এবিভাগে ভর্তি হতে পারবে। চার বছরের অনার্সে প্রায় সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের মতই খরচ হবে। এছাড়া মেধাবী ও দরিদ্র শিক্ষার্থীদের জন্য বিশেষ ছাড় ও একাধিক স্কলারশীপের ব্যবস্থা রয়েছে।

গবেষক এস এম গোলাম মোক্তাদীর বলেন খাদ্য সম্পর্কিত সমস্ত প্রায়োগিক দিকসমূহ বিবেচনায় রেখে “খাদ্য বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি” বিভাগে পড়ানো হবে ফুড প্রসেসিং, ফুড ইঞ্জিনিয়ারিং,ফলিত পুষ্টি, ফুড কেমিস্ট্রি, ফুড মাইক্রোবায়োলজি, ফুড প্রিজারভেশন, ফুড প্যাকেজিং, ফুড সেফটি অ্যান্ড হাইজিন, কোয়ালিটি কন্ট্রোল অব ফুড, এনভায়রনমেন্টাল ফুড টেকনোলজি, বেভারেজ টেকনোলজি, ফ্রুট অ্যান্ড ভেজিটেবল টেকনোলজি, ডেইরী টেকনোলজি, কোয়ালিটি ম্যানেজমেন্ট ইন ফুড ইন্ডাস্ট্রি, ইন্ট্রো ইন্সট্রুমেন্টাল মেথডস অব এনালাইসিস অ্যান্ড র্প্যাকট্রিক্যাল, ফুড প্লান্ট এন্ড মেশিন ডিজাইনসহ নানা বিষয়সমূহ ।

প্রতিটি সেমিষ্টারে তত্ত্বীয় ও ব্যবহারিক কোর্সের সাথে সাথে “ইনডাস্ট্রিয়াল ট্যুর” শিক্ষার্থীদেরকে অর্জিত জ্ঞানের সাথে প্রায়োগিক দিকের সমন্নয় ঘটায়।
এ বিষয়ে অধ্যায়নের পর ফুড ইনডাস্ট্রিগুলোতে ফুড টেকনোলোজিষ্ট, প্রডাকশন, কোয়ালিটি কন্ট্রোল, রিসার্চ এন্ড ডেভেলপমেন্ট, ফুড সেফটি এন্ড হাইজিন ডিপার্টমেন্ট সহ অন্যান্য ক্ষেত্রে কাজের সুযোগ পায়।

মেধাবী চাকুরীজীবীদের জন্য বিদেশ ভ্রমন, পদোন্নয়ন ও বিশেষায়িত ট্রেনিংসমূহের ব্যবস্থা থাকে।

এ সম্পর্কিত আরও

Mountain View