Mountain View

সু চির ভাষণ মিথ্যাচারে ভরা: রোহিঙ্গা নেতা

প্রকাশিতঃ সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৭ at ৭:২৪ অপরাহ্ণ

 

রাখাইন সঙ্কট নিয়ে জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সু চি প্রকৃত সত্য লুকিয়ে বিশ্ব সম্প্রদায়কে বিভ্রান্ত করতে চেয়েছেন বলে দাবি করেছেন রোহিঙ্গাদের এক নেতা।

ইউরোপিয়ান রোহিঙ্গা কাউন্সিলের (ইআরসি) প্রতিষ্ঠাতা ইব্রাহিম মোহাম্মদ বলেছেন, রাখাইনে সেনাবাহিনী যে ‘গণহত্যা’ চালাচ্ছে, তা আড়াল করার প্রয়াস চালিয়েছেন সু চি, দিয়েছেন নানা ‘মিথ্যা তথ্য’।

রাখাইনে রোহিঙ্গা নির্যাতন নিয়ে বিশ্বব্যাপী সমালোচনার প্রেক্ষাপটে এবার জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে না গিয়ে মঙ্গলবার জাতির উদ্দেশে ভাষণে সরকারের অবস্থান তুলে ধরেন মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সেলর সু চি।

তাতে তিনি কারও নাম না ধরে রাখাইনে সহিংসতা ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের নিন্দা জানান। ভাষণে রোহিঙ্গা শব্দটি তিনি উচ্চারণ করেননি; সেনাবাহিনীর ভূমিকা নিয়েও সরাসরি কিছু বলেননি।

মিয়ানমার থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া আট লাখ রোহিঙ্গাকে শরণার্থীদের ‘যাচাই করে’ ফেরত নেওয়ার প্রতিশ্রুতিও দেন সু চি।

গত ২৫ অগাস্ট রাখাইনে সেনা ও পুলিশ চৌকিতে রোহিঙ্গা বিদ্রোহীদের হামলার পর সেখানে অভিযান শুরু করে মিয়ানমারে সেনাবাহিনী। সন্ত্রাসী দমনে এই অভিযান বলে তাৎক্ষণিকভাবে জানিয়েছিলেন সু চি।

সেনা অভিযানে নির্বিচারে রোহিঙ্গাদের হত্যা ও ধর্ষণ এবং ঘর জ্বালিয়ে দেওয়া হচ্ছে বলে জানান আসা শরণার্থীরা। জাতিসংঘ একে রোহিঙ্গাদের ‘জাতিগত নির্মূল অভিযান’ বলে আখ্যায়িত করে; নিন্দা আসে সারা বিশ্ব থেকে।

এর মধ্যেই সু চির ভাষণের পর নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের পক্ষে ইউরোপে জনমত গঠনে সক্রিয় ইআরসির নেতা ইব্রাহিম মোহাম্মদ টেলিফোনে এ প্রতিক্রিয়া  জানান

তিনি বলেন, “আমরা যা ধারণা করেছিলাম, তাই ঘটেছে। অং সান সু চি মিথ্যা তথ্য দিয়ে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে বিভ্রান্ত করার প্রয়াস চালিয়েছেন।

“প্রথমেই তিনি ছায়া দিয়েছেন সেনাবাহিনী ও নিরাপত্তা বাহিনীকে, যারা গণহত্যা ঘটাচ্ছে। তিনি নিরাপত্তা বাহিনীর ভূমিকার কোনো নিন্দা জানাননি; উপরন্তু দায়ী করেছেন রোহিঙ্গাদের।”

সেনা অভিযান সেপ্টেম্বরের প্রথম সপ্তাহে শেষ হয়েছে বলে সু চির কথাও ঠিক নয় দাবি করে ইব্রাহিম বলেন, “এই সপ্তাহেও সেনাসদস্যরা রোহিঙ্গাদের ঘর জ্বালিয়ে দিচ্ছিল।

“তিনি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন, কিন্তু আন্তর্জাতিক অনুসন্ধানী দলকে ভিসা দেওয়া হচ্ছে না।”

রাখাইনে মুসলিমদের মতো অন্য সম্প্রদায়ও বাস্তুচ্যুত হয়েছে বলে সু চি যে কথা বলেছেন, তার প্রতিবাদ জানিয়ে রোহিঙ্গা নেতা বলেন, “এটা মোটেই সত্য নয়। অন্য জনগোষ্ঠীগুলোকে সরকারি উদ্যোগে সরিয়ে নেওয়া হয়।”

রোহিঙ্গাদের শিক্ষা ও স্বাস্থ্য সুবিধা পাওয়ার যে কথা সু চি বলেছেন, তাও ‘মিথ্যা’ বলে দাবি করেন ইব্রাহিম।

তিনি বলেন, “সু চি তার রাজনৈতিক উচ্চাভিলাষ বিসর্জন দিয়ে রোহিঙ্গা ইস্যুর সমাধান আসলে করবেন না।”

এ সম্পর্কিত আরও