Mountain View

২ ছাত্রের উত্যক্তের কারণে ছাত্রীর আত্মহত্যা

প্রকাশিতঃ অক্টোবর ২০, ২০১৭ at ১২:০৮ পূর্বাহ্ণ

চাঁদপুরের হাজীগঞ্জে দুই কিশোরের উত্যক্তের কারণে হালিমা আক্তার (১৫) নামের এক মাদ্রাসা ছাত্রী গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। বুধবার সন্ধ্যায় উপজেলার হাটিলা পশ্চিম ইউনিয়নের পাতানিশ গ্রামের পাটওয়ারী বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। হালিমা আক্তার আগামী ১ নভেম্বর অনুষ্ঠিত জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) পরীক্ষার্থী।

নিহত হালিমা আক্তার আক্তার পাতানিশ গ্রামের ফজলুল হক ওরফে টেলু মিয়ার ছোট মেয়ে। হালিমা আক্তার সুহিলপুর এবিএস ফাজিল মাদ্রাসার অষ্টম শ্রেনীর শিক্ষার্থী। পুলিশ নিহতের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য চাঁদপুর সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে।

এ ঘটনায় ফজলুল হক বাদী হয়ে বৃহস্পতিবার আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগ এনে দুই কিশোরের বিরুদ্ধে হাজীগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেছে। মামলা নং-১৪। মামলার আসামীরা হলো, একই গ্রামের ফজলুল হকের ছেলে মো. ইউনুস মিয়া (১৪) ও দেলোয়ার হোসেনের ছেলে মো.ইকবাল হোসেন (১৬)। ইউনুস মিয়া সুহিলপুর এবিএস ফাজিল মাদ্রাসার সপ্তম শ্রেনী ও ইকবাল হোসেন সুহিলপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেনীর শিক্ষার্থী। তারা সবাই একই গ্রামের বাসিন্দা।

থানায় দায়ের করা মামলা সূত্রে জানা গেছে, হালিমা আক্তার মাদ্রাসায় আসা যাওয়ার পথে ইউনুস ও ইকবাল হোসেন পৃথকভাবে তাকে উত্যক্ত করতো। গত ১২ অক্টোবর ইকবাল প্রেমের প্রস্তাব নিয়ে হালিমার বাড়িতে যায়। এ ঘটনায় হালিমার বাবা ফজলুল হক ইকবালকে গালমন্দ করে। জবাবে ইকবালও হালিমা এবং তার বাবাকে দেখে নেওয়ার হুমকি দেয়।

গত ১৮ অক্টোবর বুধবার হালিমা মাদ্রাসায় মডেল টেষ্ট পরীক্ষা দিয়ে বাড়ি ফেরার সময় ইকবাল হালিমার বাড়ির পশ্চিম পাশে এসে কথা বলার চেষ্টা করে। এ সময় ইউনুস ঘটনাটি দেখে ফেলে। এতে উভয়ের মধ্যে তর্ক-বিতর্ক ও হাতাহাতি হয়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বুধবার সন্ধ্যার আগে ইউনুস দা নিয়ে হালিমার বাড়িতে যেয়ে ঘর-দরজা কুপিয়ে ক্ষতিসাধন ও হালিমা এবং তার বাবাকে গালমন্দ করে চলে যায়। এর কিছুক্ষণ পর ইকবাল এসেও হালিমাকে গালমন্দ করে।

হালিমার মা রহিমা খাতুন জানান, ইউনুস ঘরদরজা ভাংচুর করার পর ইকবাল এসে হালিমাকে পুনরায় গালমন্দ করে। এতে লজ্জা ও অপমান সহ্য করতে না পেরে বসত ঘরের পাশে কাঁঠাল গাছের সাথে ওড়না পেঁচিয়ে ফাঁস দেয়। পরে আমরা তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাই। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনার পরে অভিযুক্ত ও তাদের পরিবারের সদস্যরা এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যাওয়ায় তাদের সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

এ প্রসঙ্গে হাজীগঞ্জ থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো.জাবেদুল ইসলাম বলেন, নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় নিহতের পিতা আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগে মামলা দায়ের করেছেন। আসামিদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এ সম্পর্কিত আরও

Mountain View