Mountain View

কটিয়াদীতে সবজির দাম আকাশচুম্বী,কৃষকের মুখে হাসি

প্রকাশিতঃ অক্টোবর ২২, ২০১৭ at ৮:৫১ অপরাহ্ণ


আতিকুর রহমান কাযিন,স্টাফ রিপোটার: সারাদেশের ন্যায় কিশোরগঞ্জের কটিয়াদীতেও সবজি বিক্রি হচ্ছে চড়া দামে। অতিবৃষ্টি ও আবহাওয়ার তারতম্যের কারণে উৎপাদন কম হওয়ায় সবজি বাজারে উর্ধ্বগতি বলে মনে করেন অনেকে। কটিয়াদী নদীর বাধঁ এলাকায় প্রতিদিন সকালে পাইকারী সবজির হাট বসে। আশেপাশের ১০ -১২ টি গ্রাম থেকে কৃষকরা নানা ধরনের সবজি নিয়ে আসেন বিক্রি করতে।এদের মধ্যে উল্লেখ্য বেগুন,কাঁচা মরিচ আটি,মূলা, লালশাক, আটি,শসা,পেঁপে, জিংগা,­আলু,পটল,লাউ,কচুমুখি,­সাজনা, বরবটি, জলপাই, কারফুল,টমেটো ইত্যাদি। বর্তমানে সবজির বাজার ভালো দাম পাওয়ায় কৃষকরা অনেক খুশি। তবে তাদের মাঝে অসন্তুষ্টির ছাপও পরিলক্ষিত হয়।

কৃষকদের অভিযোগ,ফসল ফলাতে অধিক খরচ হওয়ায় উক্ত দামে বিক্রি করেও লাভ হয় না। সরেজমিনে পাইকারী বাজার ঘুরে দেখা যায়,বেগুন ৬০ টাকা কেজি,কাঁচা মরিচ ২০০, ডাটা ১২০ টাকা আটি,মূলা ২০ টাকা, লালশাক ১০ টাকা আটি,শসা ৫০ টাকা,পেঁপে ১৫ টাকা, জিংগা ৩০ টাকা,আলু ২০ টাকা,পটল ৫০ টাকা, লাউ ৬০ টাকা কচুমুখি ২৫ টাকা,সাজনা ৬০ টাকা বরবটি ৬০ টাকা,জলপাই ৪০ টাকা, কারফুল ৬০ টাকা, টমেটো ১৪০ টাকা । ভোক্তাদের অভিযোগ ,তারা সবজির চড়া মূল্য দিয়ে খুচরা ব্যবসায়ীদের থেকে ক্রয় করতে হয়।
খুচরা ব্যবসায়ী শহিদুল্লাহ বলেন,আমরা দাম দিয়া কিনি ,দামেই বেচি। আবার সস্তায় কিনলে সস্তায় বেচি। সব কিছু বাজারের উপর নির্ভর করে।

উল্লেখ্য নদীর বাঁধ পাইকারী হাট থেক দুর দুরান্ত থেকে ব্যবসায়ীরা এসে সবজি কিনে নিয়ে যান। কিশোরগঞ্জ,তাড়াইল,নিক­লী,
পাকুন্দিয়া,হোসেনপুর ,মনোহরদী সহ বিভিন্ন স্থানের ব্যবসায়ীরা আসেন এখানে। কটিয়াদী উপজেলার মধ্যে সবচেয়ে বেশি সবজি উৎপাদিত হয় জালালপুর ইউনিয়নে। বিশেষ করে ফেকামারা,চরপুক্ষিয়া,­চরঝাকালিয়া গ্রামে। এছাড়াও কমবেশি সবজি উৎপাদিত হচ্ছে অন্যান্য ইউনিয়নে।

এ সম্পর্কিত আরও

Mountain View