Mountain View

ট্রিবিউট টু দি লিজেন্ডঃ পেলের যে ১২ টি রেকর্ড অবিনশ্বর থাকবে

প্রকাশিতঃ অক্টোবর ২৩, ২০১৭ at ২:৫৫ অপরাহ্ণ

ফুটবল সম্রাট পেলের আজ জন্মদিন। জন্মদিন উপলক্ষে তার কিছু অবিস্মরণীয় রেকর্ড তুলে ধরছি। সারা বিশ্বের মতই বাংলাদেশেও রয়েছে তার কোটি ভক্ত অনুরাগী। প্রথমেই বলে রাখি পুরো ক্যারিয়ারে তিনি এত এত রেকর্ড করেছেন যে তার সবটা লিখতে গেলে আমার আঙুলগুলো অসার হয়ে যেতে পারে! এখানে শুধুমাত্র সেই রেকর্ডগুলোই তুলে ধরছি যা ভাঙা এখন পর্যন্ত অসম্ভব বলে মনে হচ্ছে।

১. সবচেয়ে কম বয়সে বিশ্বকাপে গোল করা। ১৭ বছর ২৩৯ দিন, বনাম ওয়েলস, ১৯৫৮।

২. সবচেয়ে কম বয়সে বিশ্বকাপে হ্যাটট্রিক করা। ১৭ বছর ২৪৪ দিন, বনাম ফ্রান্স, ১৯৫৮।

৩. সবচেয়ে কম বয়সে বিশ্বকাপ ফাইনাল খেলা। ১৭ বছর ২৪৯ দিন, বনাম সুইডেন, ১৯৫৮।

৪. সবচেয়ে কম বয়সে বিশ্বকাপ ফাইনালে গোল করা। (৩নং এর ম্যাচেই)

৫. সবচেয়ে কম বয়সে বিশ্বকাপ জয়। (৩নং এর ম্যাচেই)

৬. গিনেজ রেকর্ড, সবচেয়ে বেশি গোল। ১৩৬৩ ম্যাচে ১২৮৩ গোল।

৭. গিনেজ রেকর্ড, সবচেয়ে বেশি হ্যাটট্রিক। ৯২ টি।

৮. গিনেজ রেকর্ড, সবচেয়ে বেশি ফিফা বিশ্বকাপ ও ‘ফিফা ওয়ার্ল্ড কাপ উইনার্স মেডেল’ জয়।

৯. দুটি বিশ্বকাপ ফাইনালে গোল করার রেকর্ড। ১৯৫৮ ও ১৯৭০। এই রেকর্ডে তার সঙ্গী ভাভা, পল ব্রেইটনার এবং জিনেদিন জিদান।

১০. সবচেয়ে বেশি সময়ের ব্যবধানে দুটি বিশ্বকাপের অলস্টার টিমে স্থান পাওয়া। ১৯৫৮ ও ১৯৭০, ব্যবধান ১২ বছর।

১১. একমাত্র ফুটবলার যাকে কোন দেশ আইন করে বিদেশী লিগে খেলা নিষিদ্ধ করেছিল। ১৯৬১ সালে ব্রাজিল সরকার আইন করে পেলেকে জাতীয় সম্পদ হিসেবে ঘোষণা দেয়। পেলেও দেশকে ভালবেসে কখনো ইউরোপের ক্লাবে খেলতে যান নি।

১২. সবচেয়ে বেশি এসিস্ট। তার সময়ে এসিস্টের হিসাব করা হত না। তবে ধারণা করা হয় তার এসিস্টের সংখ্যা দুই হাজার বা তার বেশি!

 

শুভ জন্মদিন ফুটবল সম্রাট পেলে। ১৯৪০ সালের এরকম এক দিনে এই বিশ্বকে ধন্য করতে জন্ম নিয়েছিলে তুমি। পুরো নাম এডসন অরান্তেস দো নসিমেন্তো। পারিবারিক নাম ডিকো। পেলে ছিল তার ট্রল নেম। এ নামেই তাকে ছোটবেলায় উত্ত্যক্ত করত পরবর্তীতে তারই সতীর্থ হওয়া হোসে আলতাফিনি! কিন্তু সম্রাট হওয়াই যার নিয়তি তিনি সেই ট্রল নেমকেই এতটাই জনপ্রিয় করে ফেললেন যে সেটা তার আসল নামকেই ছাপিয়ে গেল। ‘পেলে’ শব্দের কোন অর্থ নেই। এরকম কোন শব্দই আসলে নেই। কিন্তু স্বীয় প্রতিভা ও সাফল্য দিয়ে বিশ্ব অভিধানে এ শব্দটির আলাদা স্থান দিয়েছেন তিনি। আজ পেলে বললেই সবাই বোঝে ফুটবল সম্রাটকে, তাই পেলে শব্দটা হয়ে গেছে ফুটবলের সৌন্দর্যের সমার্থক, পেলে মানেই ফুটবলের নান্দনিকতার বহি:প্রকাশ।ফুটবল কী তা বোঝার আগেই তোমাকে জেনেছি! মানচিত্র দেখার আগেই তোমার মাধ্যমে চিনেছি ব্রাজিলকে! তোমার কারণেই ব্রাজিলকে সমর্থন শুরু, ফুটবলের সৌন্দর্যের বাহক যারা, যার নবসূচনা হয়েছিল তোমার পায়েই।

যুগে যুগে অনেক ফুটবল লিজেন্ড এসেছেন। গারিঞ্চা, ক্রুয়েফ, স্টেফানো, ম্যারাডোনা, প্লাতিনি, সক্রেটিস, রোনালদো, রোমারিও, রেনালদিনহো, জিদান, মেসি, সিআর৭ সহ অনেকে। কেউই তোমার স্কিল ও সাফল্যের কাছাকাছিও যেতে পারেনি। ভবিষ্যতেও কেউ পারবে কিনা জানি না। তুমি সম্রাট ছিলে, আছ এবং হয়তো ভবিষ্যতেও থাকবে।

অনেক অনেক শুভেচ্ছা তোমার জন্মদিনে। বেঁচে থাক আরও অনেক বছর। শুভ জন্মদিন সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ ফুটবলার পেলে।

লেখকঃ মেহেদি আজাদ, সাবেক শিক্ষার্থী, আইন বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় 

এ সম্পর্কিত আরও

Mountain View