Mountain View

দেশের ৪ হাজার ইউনিয়ন পরিষদকে শক্তিশালী করার উদ্যোগ

প্রকাশিতঃ নভেম্বর ১৬, ২০১৭ at ৬:৪৫ অপরাহ্ণ

জাতীয় ডেস্ক,বিডি টোয়েন্টিফোর টাইমসঃ রাজস্ব আয় বৃদ্ধি ও এর সুষ্ঠু ব্যবহারের মাধ্যমে স্থানীয় পর্যায়ে জনপ্রতিনিধিদের জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে করতে দেশের ৪ হাজার ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি)কে শক্তিশালী করার কার্যকর উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে।

ইউনিয়ন পরিষদ গভর্ন্যান্স প্রজেক্ট (ইউপিজিপি) গত ৫ বছর দেশের ৫৬৪টি ইউনিয়ন পরিষদ এলাকায় পরিচালিত পাইলট প্রজেক্টের ফলাফল পর্যালোচনা করে এই উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে।২০৩০ সালের মধ্যে এসডিজি বাস্তবায়নে স্থানীয় সরকারকে শক্তিশালী করার লক্ষ্যে মোট ৩৯টি বিষয়ে স্থানীয় জনগণের সরাসরি অংশগ্রহণই এই প্রকল্প বাস্তবায়নের লক্ষ্য উদ্দেশ্য ছিল বলে ইউপিজিপি’র প্রকল্প পরিচালক ইকরামুল হক সাংবাদিকদের জানান।

তিনি বলেন, গত পাঁচ বছরে দেশের ৪ হাজার ৫৩৬টির মধ্যে বিভিন্ন জেলার ৫৬৪টি ইউনিয়নে রাজস্ব আয় বৃদ্ধি পেয়ে ৯৭ শতাংশ দাঁড়িয়েছে। ২০১১-১২ সালে এসব ইউনিয়নের মোট রাজস্ব আয় ছিল মাত্র ১৩ শতাংশ সেখানে ২০১৫-১৬ সালে এই আয় বেড়ে ৯৭ শতাংশে উন্নীত হয়েছে বলে তিনি জানান।

ইকরামুল হক বলেন, ১৫৮ কোটি টাকা ব্যয়ে ইউনিয়ন পরিষদ গভর্ন্যান্স প্রজেক্ট (ইউপিজিপি) বাস্তবায়ন করে। দেশের ৫৬৪টি ইউনিয়ন পরিষদ এলাকায় কর আদায়, তৃণমূল পর্যায়ে নারী নেতৃত্ব তৈরি ও সক্ষমতা বৃদ্ধিসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। প্রতিটি ওয়ার্ডে বাধ্যতামূলক উন্মুক্ত সভার মাধ্যমে জনগণের অংশগ্রহণ, দু’মাস অন্তর স্থায়ী কমিটির সভা অনুষ্ঠান এবং স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের জবাবদিহতা অনেক বেড়েছে। এই প্রকল্পের সুফল হিসেবে প্রকল্প এলাকার ৮১ শতাংশ ইউপিতে কর নির্ধারণ সম্পন্ন করা হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, এর আগে এসব এলাকায় মাত্র ১৯ শতাংশ ইউপিতে কর নির্ধারণ করা হতো।

ইউজিপি দেশের নারী সমাজের উন্নয়নে সংশ্লিষ্ট জেলা, উপজেলা ও পৌরসভা এলাকায় নির্বাচিত নারী জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে ৬৫টি নারী উন্নয়ন ফোরাম গঠন করেছে। এই ফোরাম নারী নেতৃত্ব তৈরি ও তাদের সক্ষমতা বৃদ্ধি, নারীর ক্ষমতায়ন, ইউপিতে পরিকল্পনা গ্রহণে নারীর অংশগ্রহণ নিশ্চিত ও অগ্রাধিকার প্রদান, নারীর প্রতি সংহিসতা প্রতিরোধ, নারী বান্ধব বাজেট প্রস্তুতও বাস্তবায়নসহ বিভিন্ন নারী ইস্যুতে এই ফোরাম কাজ করবে ইউপিজিপি’র জাতীয় প্রকল্প পরিচালক ইকরামুল হক জানান।

তিনি আরো বলেন, ইউপিজিপি ২০১২-২০১৭ এই পাঁচ বছরে দেশের ৭টি বিভাগের নির্বাচিত ৭টি জেলার ৬৫টি উপজেলার ৫৬৪টি ইউনিয়ন পরিষদের রাজস্ব আয় বৃদ্ধি, বাজেট প্রস্তুত, উন্নয়ন পরিকল্পনাসহ স্থানীয় পর্যায়ে দারিদ্র বিমোচন, দক্ষতা বৃদ্ধি, শিখন ও উদ্ভাবনী কৌশল, সুশাসন প্রতিষ্ঠায় তৃণমূলের জনপ্রতিনিধিদের ভূমিকা নিয়ে কাজ করে।

ইকরামুল হক বলেন, স্থানীয় পর্যায়ে ২০১৪ সালে সুশাসন নিশ্চিত করতে ১৪৬টি ইউনিয়নে তথ্য ব্যবস্থাপনা ও হিসাব রক্ষণ ব্যবস্থা পরীক্ষামূলকভাবে চালু করা হয়। প্রকল্প এলাকার ইউনিয়ন গুলির অর্থনৈতিক স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে ৩ হাজার ৮শ’৪৪জন নিরীক্ষককে দক্ষতা মূল্যায়ণে বিশেষ প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। এ সব প্রকল্প এলাকায় ২০১৩ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত মোট ৩হাজার ৯শ’৩৯টি উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তায়ন করা হয়। এতে বরাদ্দের পরিমাণ ছিল ৪০ কোটি টাকা। এই প্রকল্পের আওতায় ৪হাজার ৯শ’৯৭ জন গ্রাম পুলিশকে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয় বলে প্রকল্প কর্মকর্তা জানিয়েছেন।

এ সম্পর্কিত আরও