Mountain View

অবসাদ কাটাতে বন্ধুদের সাথে সময় কাটানো গুরুত্বপূর্ণ

প্রকাশিতঃ নভেম্বর ১৮, ২০১৭ at ১০:৫০ অপরাহ্ণ


মডেলঃ হাসান মাহমুদ ও জুয়েল রানা

লাইফস্টাইল ডেস্ক, বিডি টোয়েন্টিফোর টাইমসঃ বয়স বাড়ার সাথে সাথে হাতাশা কিংবা অবসাদও বাড়তে থাকে। কখনও কাজের চাপ কখনও বা ব্যর্থতার ছাপ! তাই বলে হতা<শার ভারে ন্যূয়ে পড়াতো আর যায় না। কখনও কখনও এই হতাশাই বয়ে আনতে পারে চরম এক দু:স্বপ্ন। সম্প্রতি বেশ কিছু আত্মহত্যার ঘটনার কারণ অনুসন্ধানে বেড়িয়ে এসেছে বেশ কিছু কারণ। যার মধ্যে হতাশা এবং অবসাদ অন্যতম। জীবনে চলার পথটা কখনোই পুরোপুরি মসৃণ নয়। জীবনে উত্থানপতন থাকবেই। আর এরই সাথে জীবনের নানান বাকে চেপে ধরতে পারে হতাশা বা মানসিক অবসাদ। অনেকেই মানসিক অবসাদ বা হতাশা সহ্য না করতে পেরে আত্মহত্যার মতন পথ বেছে নেন। কি করা উচিত এই হতাশা কাটিয়ে ওঠার জন্য? এনিয়েই আজকের লেখা। কেন আসে হতাশা?

মানুষের জীবনে কেন হতাশা আসে তা এক কথায় ব্যাখ্যা করা মুশকিল। মনোবিদদের মতে মানুষের জীবনে যখন খুব খারাপ কিছু ঘটে তখন সেটা নিয়ে অতিরিক্ত চিন্তা করতে থাকলেই হতাশা পেয়ে বসে। কিন্ত অনেকক্ষেত্রে দেখা যায়, যে মানুষটার জীবনে কোন অভাব বা দুঃখ নেই তাকেও হতাশা পেয়ে বসে এর কারণ কি? আসলে কষ্ট বা দুঃখ ছাড়া মানুষের জীবন অসম্পূর্ণ। শুধুই সুখ একটা সময় একঘেয়ে লাগতে শুরু করে। আরও একটা বড় ব্যাপার স্বপ্ন দেখতে না পারা। যে মানুষ স্বপ্ন দেখতে পারে না তার জীবনে হতাশা আসবেই।

কি করবেন হতাশা কাটাতে?

হতাশা বা অবসাদের কবলে পড়েননি এমন মানুষ মনে হয় পৃথিবীতে নেই। আমরা কেউই চাই না হতাশা জেকে বসুক আমাদের জীবনে। কি করবেন হতাশা কাটাতে?

১। খুজে বের করুন হতাশার কারণ। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই মানুষ কোন কাজে ব্যার্থ হলে হতাশ হয়ে পড়ে। আর হতাশা আসে ঐ ব্যাপারটা নিয়ে অধিক চিন্তা করার ফলে। তাই ব্যাপারটা ভুলে যান অথবা হতাশাকে ভুলে ভবিষ্যতের দিকে মনযোগ দিন।

২।অনেকের কাছেই কারণ ছাড়াই জীবনকে একঘেয়ে লাগতে শুরু করে। চেষ্টা করুন লাইফস্টাইল পরিবর্তন করতে।

৩। ঘুরে আসুন কোথাও থেকে। দেখা গেছে, ভ্রমণ মানুষের হতাশার মাত্রা একেবারেই কমিয়ে দেয়। তাই হতাশা কাটাতে ভ্রমণের চেয়ে বড় ওষুধ আর নেই।

৪। খাওয়া দাওয়া করুন ইচ্ছেমত। খাবার মানুষের হতাশাকে দূরে ঠেলে দেয়।

৫। প্রিয়জনের সাথে সময় কাটান বেশি করে।

৬। প্রাণখুলে আড্ডা দিন বন্ধুদের সাথে। নিজেকে সবার থেকে আলাদা একা করে রাখবেন না। কারণ একাকীত্বে হতাশা আরও বাড়ে।

৭। প্রয়োজনে ব্যায়াম করুন।

৮। সকালে হাটতে বের হোন।

১০। বেশি করে ঘুমান। কারণ ঘুম হতাশাকে দূরে ঠেলে দেয়।

১১। অবসাদের ব্যাপারটা নিয়ে কাছের মানুষের সাথে আলোচনা করুন। কারণ কারো সাথে শেয়ার করলে হতাশার মাত্রা কমে যায়।

১২। হতাশা ভুলে থাকতে নতুন কিছু করার চেষ্টা করুন।
১৩। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ন হচ্ছে সমস্যাগুলো কাছের বন্ধুদের সাথে শেয়ার করা। তাদের সাথে আরও বেশি সময় কাটানো।

মানুষ হতাশায় বাচে না। মানুষ বাচে আশায়। জীবনকে উপভোগ করতে শিখুন আর নতুন নতুন স্বপ্ন দেখতে শিখুন। কারণ স্বপ্নই পারে হতাশাকে চিরতরে দূরে রাখতে।

জাহিদ/বিডি২৪টাইস/শনি

এ সম্পর্কিত আরও

no posts found

লাইফ স্টাইল এর সর্বশেষ খবর

no posts found
  • লাইফ স্টাইল - এর সব খবর →
  •