Mountain View

সেনাবাহিনীকে নির্বাচন প্রক্রিয়ায় না রাখার ষড়যন্ত্র হচ্ছে

প্রকাশিতঃ নভেম্বর ১৮, ২০১৭ at ১:০৬ পূর্বাহ্ণ

আরেকটি প্রহসনের নির্বাচন করতে ক্ষমতাসীনেরা সেনাবাহিনীকে নির্বাচন প্রক্রিয়ার বাইরে রাখার ষড়যন্ত্র করছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি নেতারা। তাঁরা বলেন, নির্দলীয় সরকারের অধীনে ভোটের শর্ত পূরণ না হলে বিএনপি জাতীয় নির্বাচনে যাবে না।

আজ শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাবে পৃথক আলোচনা সভায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ ও আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী এসব কথা বলেন।

মাওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানীর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির আলোচনা সভায় মওদুদ আহমদ বলেন, ‘সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আমরা অংশ গ্রহণ করব। তার মানে এই নয় যে জাতীয় নির্বাচনেও আমাদের একই শর্তে অংশগ্রহণ করতে হবে। ভবিষ্যতে একদলীয় নির্বাচন করতে দেওয়া হবে না।’ তিনি আরও বলেন, নির্বাচনের ৯০ দিন আগে সংসদ ভেঙে দিতে হবে। সংসদ রেখে সুষ্ঠু নির্বাচন হতে পারে না।

বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত আরেক আলোচনা সভায় আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, যদি সেনাবাহিনীকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর মধ্যে অন্তর্ভুক্ত করা না হয়, তাহলে সুস্থ মস্তিষ্কে সেই নির্বাচনের দিকে যাওয়াটা বিপজ্জনক হবে। তিনি বলেন, সেনাবাহিনীকে ম্যাজিস্ট্রেসি ক্ষমতা দিয়ে নির্বাচনী দায়িত্বে মোতায়েন করতে হবে। এর বাইরে কোনো ধরনের নির্বাচন প্রক্রিয়া এ দেশের মানুষ গ্রহণ করবে না।

সাবেক মন্ত্রী আমীর খসরু বলেন, ‘ম্যাজিস্ট্রেসি ক্ষমতার দুটি দিক আছে। একটি হচ্ছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষা করার ক্ষমতা, অন্যটি বিচার করার ক্ষমতা। আমরা বিচার করার ক্ষমতার কথা বলছি না, আমরা ম্যাজিস্ট্রেসি ক্ষমতাটা দিতে বলছি আইনশৃঙ্খলা রক্ষা করার জন্য।’

দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে আরেক আলোচনা সভায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন, তারেক রহমান দূরে বসেও তাঁর রাজনৈতিক দায়িত্ব পালন করছেন।

বাংলাদেশ ছাত্র ফোরাম ও উত্তরাঞ্চল ছাত্র ফোরাম এ আলোচনার আয়োজন করে।

এ সম্পর্কিত আরও