Mountain View

‘হার্ডহিটার’ মুমিনুলকে দেখলেই বলে ওঠেন, ‘হাথুরুসিংহে কিন্তু চলে যাচ্ছেন!’

প্রকাশিতঃ নভেম্বর ২৩, ২০১৭ at ৭:২০ অপরাহ্ণ

স্পোর্টস ডেস্ক: মুমিনুল হক আজকাল বড় বিপাকে আছেন। পরিচিত সাংবাদিকরা তাকে দেখলেই বলে ওঠেন, ‘হাথুরুসিংহে কিন্তু চলে যাচ্ছেন!’ মুমিনুলের চোখমুখ দেখে বোঝাই যায় না এতে তার ভেতর কী প্রতিক্রিয়া হচ্ছে। মাঝে মাঝে বলে ওঠেন, ‘ভাই তাতে আমার তো কিছু লাভ-ক্ষতি নেই।’ হাথুরু প্রশ্নে মুমিনুল স্বাভাবিক থাকলেও আজকাল নেট কিংবা মাঠে তিনি ব্যতিক্রম। বৃহস্পতিবার সাগরিকায় যেমন দেখা মিলল সেই ব্যতিক্রম মুমিনুলের। এক বল ঠেকান তো তিন বল মারেন।

হাথুরুসিংহে যুগে মুমিনুলের নামের পাশে টেস্ট খেলোয়াড়ের তকমা লেগে যায়। হাথুরু প্রায়ই আকারে-ইঙ্গিতে বলতেন, ‘ওর হাতে বেশি শট নেই।’ মুমিনুল কখনো এই অভিযোগের প্রতিবাদ করেননি। নিজেও মাঝে মাঝে বলতেন, ‘আমাকে আরও বেশি বেশি শট খেলা শিখতে হবে।’

বিপিএলের পঞ্চম আসরে সাত ম্যাচে ৬৩ রানে অপরাজিত ইনিংস আছে তার। আছে ৪২ রানের আরেকটি ইনিংস। সঙ্গে ১৬ বলে ২৪ রানের আরেকটি।

চট্টগ্রাম পর্ব শুরু হওয়ার আগের দিন নেটে যত সময় ব্যাট করলেন তার প্রায় পুরোটায় বড় শটেই মন দিলেন। ডাউন দ্য ট্রাকে এসে হাফভলি বানানোর কৌশল রপ্ত করতে চাইলেন একনিষ্ঠভাবে। নেটের পেছনে চেয়ারে বসা ছিলেন কোচ। কয়েকটি শট দেখার পর তাকে বলতে শোনা গেল, ‘দূরে.. মাথার উপর দিয়ে।’ কোচের নির্দেশ পেয়ে মুমিনুল বেশি বেশি ডাউন দ্য উইকেটে আসতে থাকেন।

শুক্রবার দুটি ম্যাচ। দুপুর দুইটায় মুখোমুখি হবে রংপুর রাইডার্স এবং খুলনা টাইটানস। সন্ধ্যা সাতটার ম্যাচে স্বাগতিক চিটাগং ভাইকিংস লড়বে সিলেট সিক্সার্সের বিপক্ষে।

মুমিনুলদের রাজশাহী কিংস খেলবে ২৫ নভেম্বর। কুমিল্লার বিপক্ষে। এদিন রাজশাহীকে সুখবর দিয়েছেন মোস্তাফিজুর রহমান। পুরোদমে নেটে বল করতে দেখা গেছে কাটার মাস্টারকে। হোটেলে ফেরার সময় বলে গেছেন, খেলার জন্য প্রস্তুত তিনি। রাজশাহীর ফিজিও বায়েজিদুল ইসলামও জানিয়েছেন, মোস্তাফিজ ফিট।

এ সম্পর্কিত আরও