‘অ্যাডাল্ট কনটেন্ট’ এর হাত থেকে শিশুদের বাঁচাতে যা করনীয়

প্রকাশিতঃ ডিসেম্বর ১৬, ২০১৭ at ৭:৪৯ অপরাহ্ণ

টেকনোলজি যত এগিয়েছে মানুষের লাইফস্টাইলেরও পরিবর্তন হয়েছে। স্মার্ট ডিভাইস এখন বাচ্চাদেরও হাতে হাতে চলে গিয়েছে। তারাও কিন্তু এগুলোর ব্যবহার শিখে ফেলছে অনায়াসে। প্রযুক্তি যুগের নতুন জেনারেশন বলে কথা।

সবার অজান্তে এসব ডিভাইস আর বাধাহীন ইন্টারনেটের ব্যবহারের কারণে শিশুদের কিছু অংশ অজানা এক বিপদের দিকে চলে যাচ্ছে। বাবা-মায়েদের এসব বিষয় নিয়ে ভাবতে হবে। স্মার্টফোন বা ট্যাবের মাধ্যমে অনেক আপত্তিকর ও অনুপযুক্ত জিনিস তাদের কাছে সহজে চলে আসছে।

শিশুদের হাতে ট্যাব বা স্মার্টফোন তুলে দেওয়ার আগেই ইন্টারনেটে থাকা অনুপযুক্ত বিষয়গুলো নিয়ে ভাবা উচিত। এগুলোর প্রতি সব মানুষেরই আগ্রহ কাজ করে। আপনার ব্যবস্থা গ্রহণের আগে শিশুরা যদি এসব দেখে ফেলে, তো আগ্রহ আরও বেড়ে যাবে। অবশ্য এগুলো থামাতে বাবা-মায়েদের ব্যাপক সচেতনতার দরকার নেই। সামান্য পদক্ষেপেই তারা বাচ্চার স্মার্ট যন্ত্রটাকে নিরাপদ করে দিতে পারেন।

আপনার শিশুটি যখন ইউটিউব বা অন্য কোনো সাইটে ঢুঁ মারে তখন ‘রিলেটেড ভিডিও’ অংশটি উঠে আসে। সেখানেই আপত্তিকর বিষয়গুলো উঠে আসতে পারে। এ যুগের শিশুদের সময়ের বড় একটা অংশ কাটে ইউটিউবে ভিডিও দেখে। ইউটিউব আপনাকে এই অপশনটি নিয়ন্ত্রণের সুযোগ করে দিয়েছে। তাই শিশুর ব্রাউজিং নিরাপদ করতে ইউটিউবে কী করতে হবে তা দেখে নিন-

১. আপনার গুগল অ্যাকাউন্ট দিয়ে ইউটিউবে প্রবেশ করুন।
২. এবার ‘রেসট্রিকটেড’ মোড সিলেক্ট করুন। ৩. এই মোডকে ‘অন’ করে দিন।
৪. এবার দেখাবে নিয়ম-কানুনের তালিকা। এগুলো সময় থাকলে পড়ে নিন।
৫. এবার ‘সেভ’ বাটনে চাপ দিন।
৬. আরেকটি অপশন রয়েছে। এর মাধ্যমে শিশুদের জন্য আলাদা একটি সার্চ ইঞ্জিনই তৈরি করে দিয়েছে গুগল।
৭. এটা তৈরি করাই হয়েছে শিশুদের জন্যে। দেওয়া হয়েছে ফিল্টার যা কিনা শতভাগ কাজ করে। শিশুদের কিছু খুঁজে বের করতে এই সার্চ ইঞ্জিন ব্যবহার করতে বলুন।

এ সম্পর্কিত আরও

no posts found

লাইফ স্টাইল এর সর্বশেষ খবর

no posts found
  • লাইফ স্টাইল - এর সব খবর →
  •