শুক্রবার , জুলাই ২০ ২০১৮, ১০:৪৬ অপরাহ্ণ
A huge collection of 3400+ free website templates JAR theme com WP themes and more at the biggest community-driven free web design site
প্রচ্ছদ > খেলাধুলা > যেসব ক্রিকেটার দুই দেশের হয়ে ওয়ানডে ম্যাচ খেলেছেন
Mountain View

যেসব ক্রিকেটার দুই দেশের হয়ে ওয়ানডে ম্যাচ খেলেছেন

জুবায়ের আহমেদ: একজন মানুষ একটি দেশেই জন্মগ্রহণ করেন, তবে সেটা তার জন্মভুমি হলেও পৈত্রিক নিবাস হতে পারে ভিন্ন দেশে কিংবা পৈত্রিক নিবাসে জন্মগ্রহণ করেও জীবিকার তাগিদে পুরো পরিবার সহ ভিন্ন দেশে থাকে অনেকেই। এ দেশে বেড়ে উঠলেও পরবর্তীতে নিজ দেশে কিংবা বসবাস সূত্রে ভিন্ন দেশে স্থায়ী হওয়ার ফলে দুই দেশের হয়ে কোন কোন বিষয়ে প্রতিনিধিত্ব করার সুযোগ আসে।
আন্তর্জাতিক ক্রিকেট যেহেতু দেশভিত্তিক হয়, আন্তর্জাতিক ক্রিকেটেও অনেক ক্রিকেটার আছেন যারা নিজ জন্মভূমি এবং বসবাস সূত্রে নাগরিকত্ব পাওয়া দেশের হয়েও প্রতিনিধিত্ব করেছেন। ওয়ানডে ক্রিকেটে দুই দেশের জাতীয় দলের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করেছেন এমন সব ক্রিকেটারদের নিয়েই এই আয়োজন।

কেপলার ওয়েলস ১৯৮৩-৮৫ সাল পর্যন্ত অস্ট্রেলিয়ার হয়ে ৫৪টি ম্যাচ খেলেছেন। তারপর ১৯৯১-৯৪ সাল পর্যন্ত আফ্রিকার হয়ে ৫৫টি ওয়ানডে ম্যাচ খেলেছেন। দুই দেশের হয়েই ব্যাট হাতে সফল ছিলেন তিনি।

কাইটন লেমবার্ট ১৯৯০-৯৮ পর্যন্ত উইন্ডিজের হয়ে ১১টি ওয়ানডে খেলেছেন এবং ২০০৪ সালে আমেরিকার হয়ে ১টি ওয়ানডে খেলেছেন। উইন্ডিজের হয়ে ব্যাট হাতে সেঞ্চুরী আছে তার।
এন্ডারসন কামিন্স ১৯৯১-৯৫ পর্যন্ত উইন্ডিজের হয়ে ৬৩টি ওয়ানডে খেলেছেন এবং ২০০৭ সালে কানাডার হয়ে ১৩টি ওয়ানডে খেলেছেন। দুই দেশের হয়েই বল হাতে সফল ছিলেন তিনি।
ডিআর ব্রাউন ১৯৯৭-৯৮ পর্যন্ত ইংল্যান্ডের হয়ে ৯টি ওয়ানডে খেলেছেন এবং ২০০৬-০৭ পর্যন্ত স্কটল্যান্ডের হয়ে ১৬টি ওয়ানডে খেলেছেন, অলরাউন্ডার হিসেবে দুই দেশের হয়েই মোটামুটি সফল ছিলেন তিনি।

জো জোনস ইংল্যান্ডের হয়ে ২০০৪-০৬ পর্যন্ত ৪৯টি ওয়ানডে খেলেছেন এবং ২০১৪ সালে পাপুয়া নিউগিনির হয়ে ২টি ওয়ানডে খেলেছেন। ইংল্যান্ডের হয়ে ব্যাট হাতে তেমন সুবিধা করতে না পারায় ২০০৬ সালের পর আর জাতীয় দলের হয়ে সুযোগ হয়নি। শেষে ২০১৪ সালে পাপুয়া নিউগিনির হয়ে খেলেছেন।

এড জয়েস ইংল্যান্ডের হয়ে ২০০৬-০৭ সালে ১৭টি ওয়ানডে খেলেছেন এবং ২০১১ থেকে চলতি সময় পর্যন্ত আয়ারল্যান্ডের হয়ে ৫৫টি ওয়ানডে ম্যাচ খেলেছেন। দুই দেশের হয়ে ব্যাট হাতে সেঞ্চুরী আছে জয়েসের, বর্তমানে আইরিশ ক্রিকেট দলের বড় তারকাও জয়েস।

ইয়ন মরগান ২০০৬-০৯ পর্যন্ত আয়ারল্যান্ডের হয়ে ২৩টি ওয়ানডে খেলেছেন এবং ২০০৯ থেকে বর্তমান অবধি ইংল্যান্ডের হয়ে ১৬৭টি ওয়ানডে খেলেছেন। দুই দেশের হয়েই সফল ছিলেন মরগান, বর্তমানে তিনি ইংল্যান্ড ওয়ানডে দলের অধিনায়ক এবং বিশ্ব ক্রিকেটের এক পরিচিত মুখ।

বয়েড র্যানকিন ২০০৭-১৭ পর্যন্ত আয়ারল্যান্ডের হয়ে ৪১টি ওয়ানডে ম্যাচ খেলেছেন এবং মাঝখানে তথা ২০১৩-১৪ সালে ইংল্যান্ডের হয়ে ৭টি ওয়ানডে ম্যাচ খেলেছেন, দুই দেশের হয়েই বল হাতে সফল র্যানকিন।

লুক রনকি অস্ট্রেলিয়ার হয়ে ২০০৮ সালে ৪টি ওয়ানডে ম্যাচ খেলেছেন এবং ২০১৩ থেকে বর্তমান অবধি পর্যন্ত নিউজিল্যান্ডের হয়ে ৮১টি ওয়ানডে ম্যাচ খেলেছেন। ব্যাট হাতে ঝড়ো ইনিংস খেলা রনকি বিশ্ব ক্রিকেটের পরিচিত মুখ এখন। সদ্য শেষ হওয়া বিপিএলে চট্টগ্রাম ভাইকিংসের হয়ে অধিনায়কত্ব করা সহ দুর্দান্ত ব্যাটিং করেছেন তিনি।

এ সম্পর্কিত আরও

Best free WordPress theme

Mountain View

Check Also

রেকর্ড গড়ে রিয়ালে আসছেন এডেন হ্যাজার্ড

স্পোর্টস করেসপন্ডেন্ট: ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর অভাব পূরণে টাকার থলে নিয়ে নেমেছে রিয়াল মাদ্রিদ। রোনালদোর বিকল্প হিসেবে …