A huge collection of 3400+ free website templates JAR theme com WP themes and more at the biggest community-driven free web design site
প্রচ্ছদ > এক্সক্লুসিভ > বাংলাদেশের সর্বকালের সেরা টেস্ট একাদশ
Mountain View

বাংলাদেশের সর্বকালের সেরা টেস্ট একাদশ

বিডি টোয়েন্টিফোর টাইমসঃ নিদাহাস ট্রফির পর আপাতত টাইগারদের আর কোন খেলা নেই। এই সময়টাতে বিডি টোয়েন্টিফোর টাইমস এর ক্রীড়া বিভাগ সাজিয়েছে বাংলাদেশের সর্বকালের সেরা টেস্ট একাদশ। চলুন দেখে নেই কারা সুযোগ পেলেন সেই একাদশে।

টেস্ট ক্রিকেটে বাংলাদেশের পথচলা খুব বেশি দিনের নয়। ২০০০ সালে ক্রিকেটের অভিজাত পরিবারের সদস্য হওয়ার পর সে বছরই অভিষেক টেস্ট খেলে বাংলাদেশ। এরপর কেটে গেছে ১৮ টি বছর।   চুলন দেখে নেই ১৮ বছরের পারফরম্যান্স মূল্যায়নে সেরা একাদশে কারা সুযোগ পেলেন-

১. জাভেদ ওমার বেলিমঃ  বাংলাদেশের অভিষেক টেস্টে সুযোগ না পেলেও ২০০১ সাল হতে ২০০৮ সাল পর্যন্ত টেস্ট মেজাজের ব্যাটিংয়ের অপর নাম হয়ে থাকবে জাভেদ ওমার বেলিম গুল্লুর নাম। সংযমী ব্যাটিংয়ের কারণে সবসময় নির্ভরতার প্রতীক ছিলেন জাভেদ ওমার বেলিম। আসা যাওয়ার মিছিলে একপ্রান্ত ঠিকই আগলে রাখতেন তিনি। অভিষেক টেস্টেই ইনিংসের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত ব্যাট করার কীর্তি আছে তার ঝুলিতে।

২. তামিম ইকবাল খানঃ  কোন ধরনের প্রশ্ন ছাড়াই বাংলাদেশের  সর্বকালের সেরা ব্যাটসম্যান তামিম ইকবাল খান। টেস্ট, ওয়ানডে কিংবা টি টোয়েন্টি  যেকোন ধরনের ক্রিকেটেই তামিম ইকবাল খানকে ছাড়া একাদশ হবে না।

৩.  হাবিবুল বাশার ( অধিনায়ক):  সেই অভিষেক টেস্ট থেকে ২০০৭ সাল পর্যন্ত। বাংলাদেশের সেরা ব্যাটসম্যান ছিলেন। নামের পাশে হয়ত খুব বেশি শতক নেই। তবে বাংলাদেশের সর্বকালের সেরা টেস্ট একাদশ তাকে ছাড়া কখনই পূর্ণ হবে না। যেখানে তিনিই থাকবেন অধিনায়ক হিসেবে।

৪. মুমিনুল হক/ আমিনুল ইসলাম বুলবুলঃ এই একাদশ গড়তে সবচেয়ে কঠিনতম সিদ্ধান্ত। অভিষেক টেস্টের সেঞ্চুরিয়ান নাকি অভিষেকের পর থেকে টানা ১৩ টেস্টে ফিটি প্লাস  ইনিংস খেলা কেউ? আমরা বেছে নিয়েছি মুমিনুল হককেই। কারণ আমিনুল ইসলাম বুলবুলের ঝুলিতে ওই একটাই সেঞ্চুরি। ১৩ টেস্টের ক্যারিয়ারে মাত্র ৫৩০ রান আর গড় ২১! এমন কাউকে নিতে গিয়ে আপনি মুমিনুল হককে বাদ দিতে পারেন না। যেখানে মুমিনুলের রয়েছে ৪ টি শতক ও ৫০ ছুঁই ছুঁই গড়।

৫. মুশফিকুর রহিম ( উইকেট রক্ষক):  বাংলাদেশের সেরা টেস্ট  একাদশে কে হবেন উইকেট রক্ষক ব্যাটসম্যান।  উইকেটের পেছনের দক্ষতায় খালেদ মাসুদ পাইলট এগিয়ে থাকলেও ব্যাটিং দক্ষতায় মুশফিকুর রহিম অনেক অনেক এগিয়ে। তাই পাইলটকে ছাপিয়ে দলে সুযোগ পেয়েছেন মুশফিকুর রহিমই।

৬.  মোহাম্মদ আশরাফুলঃ অভিষেক টেস্টেই সর্বকালের সর্বকনিষ্ঠ ব্যাটসম্যান হিসেবে শতরান করা আশরাফুলকে ছাড়াও টেস্ট দল হতে পারে না। যে কোন উইকেটেই প্রতিপক্ষের উপর কাউন্টার অ্যাটাকে আশরাফুল ছিলেন অনন্য।

৭.  সাকিব আল হাসানঃ তামিম ইকবালের সাথে অপর আরেকজন ক্রিকেটার আছেন যিনি বাংলাদেশের যেকোন ফরম্যাটের ক্রিকেটেই অটোমেটিক চয়েজ। তাই সাকিবের জন্য দলে থাকাটা অবধারিতই।

৮.  মোহাম্মদ রফিকঃ নিসন্দেহে বাংলাদেশের সর্বকালের অন্যতম সেরা স্পিনার। সাথে যোগ করুন তার ব্যাটিং।  ৯ নম্বর পজিশনেও সেঞ্চুরি আছে তার। যে কারণে স্পেশালিস্ট স্পিনার হিসেবে তাইজুল ইসলাম, এনামুল হক জুনিয়র কিংবা হালের মেহেদি হাসান মিরাজদের ছাপিয়ে তিনিই সুযোগ পেয়েছেন বাংলাদেশের সর্কালের সেরা টেস্ট দলে।

৯. মাশরাফি বিন মর্তুজাঃ ফিট মাশরাফির জন্য বাংলাদেশের যেকোন ধরনের ক্রিকেটেই প্রথম পেসার এর জায়গাটা অবধারিত। তাই তাকে ছাড়াও টেস্ট দল সম্পূর্ণ হতে পারে না।

১০.শাহাদাত হোসেন: দেশের মাটিতে খেলা হলে শাহাদাতের জায়গায় সুযোগ পাবেন মেহেদী হাসান মিরাজ। কিন্তু  একাদশ গঠনে বিবেচনা করা হয়েছে দেশ এবং দেশের বাইরের কন্ডিশন। তাই ৩ পেসার নিয়ে দল গঠন করায় মাশরাফির সাথে দলে সুযোগ পেয়েছেন তিনি। এক্ষেত্রে রবেল হোসেনও আসতে পারতেন কিন্তু শুরুর ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে পারেন নি তিনি।

১১. মোস্তাফিজুর রহমানঃ মাত্রই ৩ বছর হতে চলেছে তার আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারের । এর মধ্যে তিনি িপ্রমাণ করেছেন বাংলাদেশ দলে তার অপরিহার্যতা। মোস্তাফিজুরকে ছাড়া টাইগার একাদশের পেস আক্রমণ অনেকটাই দূর্বল হয়ে যায়।

 

বিঃদ্রঃ বাংলাদেশের সর্বকালের সেরা  টেস্ট একাদশ গঠণ করেছে বিডি টোয়েন্টিফোর টাইমস এর  স্পোর্টস বিভাগ।

এ সম্পর্কিত আরও

Best free WordPress theme

Check Also

উইন্ডিজ-বাংলাদেশের টেস্ট ম্যাচে দুই সেরা ব্যাটসম্যান

জুবায়ের আহমেদ: পূর্ণাঙ্গ সিরিজ খেলার জন্য উইন্ডিজে অবস্থান করছে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল, অবশ্য ইতিমধ্যে …